• বৃহস্পতিবার   ২৬ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১২ ১৪২৭

  • || ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

৬৬

আরপি সাহার জন্মদিনে আলোচনা সভা

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর ২০২০  

কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা দানবীর রণদা প্রসাদ সাহাকে স্মরণ করলো ‘আমার মির্জাপুর’ ফেসবুক গ্রুপের প্যানেল মেম্বাররা। দানবীর রণদা প্রসাদ সাহার ১২৪তম জন্মদিন উপলক্ষে শুক্রবার ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তাকে স্মরণ করা হয়।

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ মামুনুল আলমের সভাপতিত্বে রাত ৮টায় এ অনুষ্ঠান শুরু হয়। আলোচনায় সঞ্চালক ছিলেন শক্তি সাহা।


সৈয়দ মামুনুল আলম উদ্বোধনী বক্তব্যে বলেন, দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা শুধু একজন ব্যক্তি নয়, তিনি একটি প্রতিষ্ঠান, তিনি একটি স্মারক, তিনি একটি দেশ, তিনি একটা গর্ব এবং আমাদের অনুপ্রেরণা। জন্মের পর থেকেই তার নাম শুনে এসেছি। তার কৃতিত্বের কথা বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিভিন্ন জায়গায় দীপ্তমান। তিনি শুধু মির্জাপুরের সম্পদ না, তিনি বাংলাদেশের সম্পদ, তিনি সারা পৃথিবীর সম্পদ।

সভাপতির উদ্বোধনী বক্তব্যে পর এক এক করে প্যানেল মেম্বাররা রণদা প্রসাদ সাহার জীবন ও তার স্মৃতি নিয়ে আলোচনা করেন। বক্তারা স্বাস্থ্য ও শিক্ষার ক্ষেত্রে রণদা প্রসাদ সাহার অবদানের কথা কৃতজ্ঞতা চিত্তে স্মরণ করেন। একইসঙ্গে রণদা প্রসাদ সাহা ও তার ছেলের অপহরণের সঙ্গে জড়িতদের খোঁজে আইনের আওতায় আনার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান।

আলোচনা শেষে সভাপতির সমাপণী বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।

উল্লেখ্য, ১৮৯৬ সালের ১৫ নভেম্বর উথ্যান একাদশীতে অতিদরিদ্র পরিবারে রণদা প্রসাদ সাহার জন্ম। তার মায়ের নাম কুমুদিনী দেবী এবং বাবার নাম দেবেন্দ্রনাথ সাহা। শিশুকালেই বাবা-মাকে হারিয়ে বড় হন তিনি। কঠিন অধ্যাবসায় আর অদম্য সাহসিকতা নিয়ে এগিয়ে যান তিনি। জীবনসংগ্রামে জয়ী এই রণদা প্রসাদ সাহা জীবনের সমস্ত উপার্জিত অর্থ মানবতার কল্যাণে দান করে কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠা করেন।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযদ্ধের সময় দুর্বৃত্তরা রণদা প্রসাদ সাহা ও তার ছেলে ভবানী প্রসাদ সাহাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। তারপর থেকে তাদের আর কোনো খোঁজ এখনো মেলেনি।

নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর