• বৃহস্পতিবার   ০৪ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২০ ১৪২৭

  • || ২১ রজব ১৪৪২

কলেজ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে আরেক ছাত্র আটক

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২০ জানুয়ারি ২০২১  

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার চতলবাইদ এলাকায় আনিছুর রহমান (১৮) নামে এক কলেজছাত্রকে হত্যার অভিযোগে তাজমুল ইসলাম নামে অপর এক কলেজ ছাত্রকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে হামলার ঘটনাটি ঘটে। হামলায় নিহত ওই ছাত্রের যমজ ভাই কলেজছাত্র আশিকুর রহমান(১৮) গুরুতর আহত হন। আহত আশিকুরকে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।


নিহত আনিছুর ও আহত যমজভাই আশিকুর সখীপুর উপজেলার চতলবাইদ গ্রামের প্রবাসী আমিনুর রহমানের ছেলে ও দুজনই সখীপুর সরকারি মুজিব কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

চিকিৎসাধীন আহত আশিকুর জানান, মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে তারা দুই ভাই, সহপাঠী এক খালাতো বোন ও বাড়ির আরও দুই শিশুকে নিয়ে বাড়ি থেকে ২৫০ গজ দূরে হালিম পীরের বাড়িতে বার্ষিক বাউল গানের আসরে যান। রাত ১১টার দিকে সবাইকে নিয়ে ফেরার পথে হঠাৎ পেছন থেকে একদল দুর্বৃত্ত তাদের ওপর হামলা চালিয়ে বেদম মারপিট করে। এ সময় তাদের সহপাঠী খালাতো বোন ও দুই শিশু দৌঁড়ে বাড়ি গিয়ে বিষয়টি সবাইকে জানায়। পরে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে আহত দুই ভাইকে উদ্ধার করে রাত ১টার দিকে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক আনিছুরকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ জানায়, বুধবার  সকালে ময়না তদন্তের সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে লাশ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এর আগের রাতেই হামলায় জড়িত সন্দেহে ঘটনাস্থল থেকে তাজমুল ইসলাম (১৮) নামে এক কলেজছাত্রকে ধরে গ্রামবাসী পুলিশের দিয়েছে। আটক তাজমুল উপজেলার ঘেচুয়া গ্রামের প্রবাসী নুরুল ইসলামের ছেলে। এ ঘটনায় সখীপুর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এদিকে গত দুই দিন আগে ‘মৃত্যু খুব কাছেই’ লিখে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন নিহত আনিছুর। তার বন্ধুরা এটিকে পূর্ববিরোধ থেকে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে দাবি করছেন। তারা অপরাধীদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।


সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে সাইদুল হক ভূঁইয়া জানান, হামলা চালিয়ে পেটানোর কথা বলা হলেও নিহত আনিছুরের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে সুরতহাল রিপোর্টে আনিছুরের দুই চোখ লাল ছিল বলে লেখা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ময়না তদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। কী কারণে মৃত্যু হয়েছে ময়না তদন্তের পর তা নিশ্চিত হবে।