• বৃহস্পতিবার   ০৪ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২০ ১৪২৭

  • || ২১ রজব ১৪৪২

জমি রক্ষার দাবি কৃষকদের

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০২১  

মানিকগঞ্জে তিন ফসলি কৃষি জমি রক্ষার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে কুশাভাঙ্গা কৃষি জমি রক্ষা আন্দোলন কমিটি। রবিবার  মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন কৃষি জমি রক্ষা আন্দোলন কমিটির সভাপতি আলতাফ হোসেন।

তিনি বলেন, মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আটিগ্রাম ইউনিয়নের কুশাভাঙ্গা গ্রামে তরফ আটিগ্রাম মৌজায় প্রায় চার হাজার একর তিন ফসলি কৃষি জমি রয়েছে। সারা বছর এখানে কৃষকরা তাদের ফসল উৎপাদন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। সম্প্রতি স্থানীয় দালাল নূরনবী, রাজা মিয়া, আব্দুর রহিম, আব্বাস আলী, নান্নু মিয়া, ইউপি সদস্য তপন দাস, রাশু মিয়াসহ আরো কয়েকজন মিলে বেশ কয়েকজনের কাছ থেকে উচ্চ মূল্যে ৫০ বিঘার মতো কৃষি জমি একটি প্রতিষ্ঠানকে কিনে দেন। এরপর রাতারাতি খননযন্ত্র দিয়ে ফসলের মাঠের চার দিকে উচু করে বাঁধ দেয়। পাশাপাশি ফসলের মাঠে যাওয়ার জন্য সরকারি রাস্তাটিও কেটে কৃষকদের যাতায়াতের পথ বন্ধ করে দেয়। বাঁধের মাঝখানে ৫শ বিঘার মতো কৃষি জমি আটকে পড়ে। ওই জমিতে কৃষকরা এখন যেতে পারছে না। স্থানীয় দালাল চক্র কৃষকদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। জমি বিক্রি করতে নানাভাবে চাপ প্রয়োগ করছে।


কৃষি জমি রক্ষার দাবিতে স্থানীয় ৮৪ জন কৃষক তাদের প্রকৃত জমির হিসাব দিয়ে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর আবেদন করেন।

স্থানীয় প্রশাসন সরেজমিনে গিয়ে সরকারি রাস্তার উপর বাঁধ দেওয়া অংশটি অপসারণ করেছেন। ড্রেজার দিয়ে দালাল চক্রকে মাটি ভরাট করতে নিষেধ করে এসেছেন। কিন্তু যে কোন সময় রাতে আধারে ওই চক্র কৃষি জমিতে ড্রেজার দিয়ে ভরাট করার প্রস্ততি নিয়েছেন। ড্রেজার দিয়ে মাটি ভরাট করলে প্রতিষ্ঠানটি নামে ক্রয় করা জমি ছাড়াও আশপাশে অন্যের কৃষি জমির কৌশলে ভরাট করে ফেলবে। এতে বাধ্য হয়েই কৃষকরা তাদের জমি ওই প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে দেবে।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সম্পদ চন্দ্র সরকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী কৃষিবান্ধব সরকার। কৃষিজমি রক্ষার জন্য সরকার নানাবিধ পদক্ষেপ নিয়েছেন। তিন ফসলি জমি উপর শিল্পকারখানা গঠনের কোন বিধান নেই। এখানে সাড়ে তিন হাজার একর কৃষি জমি নষ্ট করে একটি চক্র শিল্পকারখানা গঠনের জন্য কৃষকদের ভয়ভীতি দেখিয়ে জমি বিক্রির করতে বাধ্য করছে। তারা ওয়ারিশ সূত্রে মালিকদের কাছে থেকে জমি ক্রয় করে পুরো জমি দখল করে নিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে কৃষি জমি রক্ষা কমিটির সদস্য আব্দুস সোবহান বলেন, কৃষি জমি রক্ষার দাবিতে আমরা প্রধানমন্ত্রী, ভূমিমন্ত্রী, স্বরাষ্টমন্ত্রী, জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন স্থানে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। স্থানীয়ভাবে শত শত কৃষক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছি।