• শুক্রবার   ০৭ মে ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২৪ ১৪২৮

  • || ২৬ রমজান ১৪৪২

পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাইকারীকে আটক করলো জনতা

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১৭ এপ্রিল ২০২১  

 ঢাকার সাভারে রাতের আঁধারে পুলিশ পরিচয়ে প্রায় ১৮ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে মনির হোসেন নামে এক জনকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার  আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ জিয়াউল ইসলাম।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) রাত ১১টার দিকে আরইবি রোডের হাজী মার্কেটের রাসেল স্টোর নামে একটি দোকানের সামনে থেকে পুলিশ পরিচয়ে কৌশলে টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায় মনির। পরে দিবাগত রাত ২টার দিকে ধাওয়া দিয়ে পুলিশ পরিচয়দানকারী ব্যক্তি মনির হোসেনকে আটক করে স্থানীয়রা।

ভুক্তভোগী ও স্থানীয়দের অভিযোগ, পুলিশ পরিচয়দানকারী ব্যক্তি সুদীপ কুমার গোপ নামে আশুলিয়া থানার এক উপ-পরিদর্শকের (এসআই) ব্যক্তিগত লোক। তবে এসআই সুদীপ বিষয়টি অস্বীকার করে আটক ব্যক্তির বিরুদ্ধে মাদক সংশ্লিষ্টতা ও পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

পল্লীবিদ্যুৎ আরইবি অফিস সংলগ্ন হাজী মার্কেটের মুদি ও চা দোকানি আব্দুল জব্বার বলেন, রাতে গাড়ি থেকে কলা নামিয়ে নিয়ে এসে আমার দোকানে টাকা ভাগাভাগি করছিলো লেবাররা। এসময় এক ব্যক্তি এসে পুলিশ পরিচয় দিয়ে বলে দোকান খোলা কেন? পরে আমি ভয়ে দোকান বন্ধ করে দেই। এরপর তিন জন লেবারকে বাইরে নিয়ে যায় পুলিশ পরিচয়দানকারী সেই ব্যক্তি।  

কলার লেবার (দিনমজুর) মো. কাজল বলেন, আমরা সেই দোকানে প্রতি রাতে বসে টাকা গুনি। পুলিশের লোক এসে আমাদের জিজ্ঞেসা করে এবং বলে সামনে গাড়ি আছে সেখানে গিয়ে ওঠো। গাড়িতে না উঠে আমরা দাঁড়িয়েছিলাম। এসময় সেই পুলিশের লোক আমাদের হাতে থাকা টাকা নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে আমরা তার পেছনে দৌড়ে গিয়ে আর পাইনি। কিছুক্ষণ পর রাত বেশি হলে আবার এক জনকে ধরে সেই পুলিশ পরিচয়দানকারী ব্যক্তি। সেখানে আমরা গেলে সেই ব্যক্তি আমাদের দেখে পালানোর চেষ্টা করলে আমরা তাকে ধরে ফেলি। সে নাকি এসআই সুদিপের পার্সোনাল লোক। তার নাম বেচ্চা খায় আর কি। আমাদের পাঁচ জনের প্রায় ১৮ হাজার টাকা নিয়েছে তিনি। এর কিছুক্ষণ পর পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে তাকে আটক করে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুদীপ কুমার গোপ বলেন, ওই ব্যক্তি হয়তো পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করে।  আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ জিয়াউল ইসলাম বলেন, আটক ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনগত বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।