• রোববার   ০৭ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২২ ১৪২৭

  • || ২৩ রজব ১৪৪২

মানিকগঞ্জে ফুটওভার ব্রিজের প্রবেশমুখে গাড়ি পার্কিং

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০২১  

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের জনবহুল এবং ব্যস্ততম মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকার একমাত্র ফুট ওভারব্রিজটি অকেজো অবস্থায় পড়ে আছে। ফুট ওভারব্রিজটির প্রবেশমুখ দখল করে গাড়ি পার্কিং, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ এবং সচেতনতার অভাবে এটি লোকজন ব্যবহার করছে না। ফলে জং ধরে পড়ে আছে কোটি টাকার ফুট ওভারব্রিজটি। এদিকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হেঁটে সড়ক পার হচ্ছে হাজার হাজার পথচারী। এতে প্রতিনিয়ত ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা।

ফুট ওভার ব্রিজসংলগ্ন উত্তর পাশে রেন্ট-এ-কার এবং সিএনজিচালিত অটোরিকশার স্ট্যান্ড বানিয়ে দখলে নেওয়া হয়েছে প্রায় দুই বিঘা জমি। এ জমি প্রতি বছর ভাড়া দেয় পৌরসভা। পরিবহনের সঙ্গে সম্পৃক্ত রাজনৈতিক নেতারাই এ জায়গাগুলো লিজ নেয় প্রতি বছর। পৌরসভা কর্তৃপক্ষও করোনাকালীন বিবেচনায় লিজ বাতিল করে খাস কালেকশন শুরু করে। এ সুযোগে যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং করে আটকে ফেলা হয়েছে ফুট ওভারব্রিজের প্রবেশমুখ। পৌরসভার কোনো তদারকি না থাকায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ। এ জন্য ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহারে অনীহা পথচারীদের।

ফুটওভার ব্রিজের গা ঘেঁষেই আবার বসানো হয়েছে ছোট-বড় ১০টিরও বেশি টং দোকান। এ দোকানগুলো থেকে মাসিক ভাড়া তোলা হয় লক্ষাধিক টাকা। ফুট ওভারব্রিজ-সংলগ্ন জায়গা দখলমুক্ত করে এর প্রবেশদ্বার উন্মুক্ত করার জোর দাবি জানিয়েছে পথচারীরা।

আলেয়া নামের এক স্কুলশিক্ষিকা পথচারী বলেন, প্রবেশমুখে এলোমেলো গাড়ি রাখায় ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহার করা যাচ্ছে না, পরিবেশটাও অনেকটা নোংরা। বখাটেরা রেলিংয়ের ওপর উঠে বসে থাকে, ধূমপান করে। বাধ্য হয়েই আমাদের ঝুঁকি নিয়ে হেঁটে রাস্তা পারাপার হতে হয়। মানিকগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আনিসুর রহমান বলেন, ‘পথচারীদের ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহারের অনীহার কারণে আমরা সড়কের পাশে ব্যারিকেড দিয়েছি। ফুটওভার ব্রিজের প্রবেশমুখ বন্ধ করে কাউকে গাড়ি রাখতে দেওয়া হবে না। আমরা এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।’