• বুধবার   ১৪ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ১ ১৪২৮

  • || ০২ রমজান ১৪৪২

স্বামী-শ্বশুরের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে নববধূর আত্মহত্যা

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ৬ মার্চ ২০২১  

বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় স্বামী ও শ্বশুরের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বিয়ের চার মাসের মাথায় সুমাইয়া আক্তার মিতু (২০) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। গতকাল শুক্রবার বিকেলে ফুলজোড় মধ্যপাড়া গ্রামে স্বামীর বাড়ির শয়ন কক্ষে গলায় ওড়না পেচিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।

পরে পুলিশ গতকাল সন্ধ্যায় ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করেন। এদিন রাতেই মিতুর মা সোনিয়া আক্তার বাদী হয়ে শেরপুর থানায় রাতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় উল্লেখ করা হয়, স্বামী ও শ্বশুরের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে।

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার ফুলজোড় মধ্যপাড়া গ্রামের হাকিম খান ওরফে হিটলারের ছেলে জুবায়ের খানের গত চার মাস আগে টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর উপজেলার বাবনাপাড়া গ্রামের মিজানুর রহমানের মেয়ে সুমাইয়া আক্তার মিতুর সঙ্গে ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে এবং উভয় পরিবারের সদস্যদের না জানিয়ে তারা পালিয়ে বিয়ে করে। পরবর্তীতে ছেলে জুবায়ের খানের পরিবার মেনে নিলেও মিতুর পরিবার মেনে নিতে অস্বীকার করেন। এতে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মতবিরোধ ও পরিবারে অশান্তির সৃষ্টি হয়।


এরই একপর্যায়ে গতকাল শুক্রবার দুপুরের খাবার খেয়ে মিতু তার শয়ন কক্ষের দরজা-জানালা বন্ধ করে ঘুমোতে যান। পরবর্তীতে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পর ঘুম থেকে জেগে না ওঠায় স্বামী পরিবারের লোকজন তার নাম ধরে একাধিকবার ডাকাডাকি করেন। কিন্তু কোনো সাড়া-শব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে গৃহবধূ মিতুকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে থানায় খবর দেয়।

শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘শয়নকক্ষের তীরের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ওই গৃহবধূর মৃত্যু হয়। তবে প্রাথমিকভাবে মৃত্যুর কারণ জানা যায়নি। তাই লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন হাতে পাওয়া গেলেই মৃত্যুর কারণ সঠিক করে বলা সম্ভব হবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা নেওয়া হয়েছে।’