• বৃহস্পতিবার   ১৫ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২ ১৪২৮

  • || ০৩ রমজান ১৪৪২

হত্যা মামলা থেকে নাম বাদ দেয়ায় প্রতিবাদ সমাবেশ

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ৭ মার্চ ২০২১  

ধামরাই প্রেসক্লাবের সহসভাপতি ও বিজয় টিভির সাংবাদিক জুলহাস উদ্দিনকে প্রকাশ্যে গলাকেটে হত্যাকান্ডের ঘটনায় এজাহারভুক্ত দুই আসামিকে মামলা থেকে বাদ দেয়ায় ধামরাইয়ে কর্মরত সাংবাদিকরা এক প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ।

 রবিববার বেলা ১১টার দিকে ধামরাই প্রেসক্লাবের উদ্যোগে প্রেসক্লাবের সামনে এ প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে ধামরাই প্রেসক্লাবের সভাপতি আবু হাসানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন,ধামরাই প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও আমাদের সময় ধামরাই প্রতিনিধি বাবুল হোসেন, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইনকিলাবের আনিস উর রহমান স্বপন, সমকালের মোকলেছুর রহমান, মানব জমিনের আজহারুল ইসলামরাজু,এশিয়ান টিভির মোস্তাফিজুর রহমান বকুল, আমার সংবাদের আবদুল কাদের, আমার সময়ের আবদুল আহাদ বাবু, আওয়ার টাইমের গোলাম কিবরিয়া স্বপন, সাংবাদিক জুলহাস উদ্দিনের স্ত্রী কবিতা আক্তার, বোন মাজেদা আক্তার প্রমুখ।

এসময় সাংবাদিকরা, প্রকাশ্যে এ হত্যাকান্ডের বিষয়ে পুণরায় তদন্তের দাবি জানান। নিহত জুলহাসের স্ত্রী কবিতা বলেন, খুনি মামুন ও মালেক ইতিপূর্বেও জুলহাসকে হত্যার উদ্দেশে বেদম মারপিট করেছিল। তারা খুনের সময় ঘটনাস্থলে ছিল। নিহত জুলহাসের বোন মামলার বাদি রিনা আক্তার বলেন, আমি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে বলেছিলাম আমার ভাইয়ের হত্যার সাথে জড়িত মামুন ও মালেকের নাম চার্জশিট থেকে বাদ দিয়েন না। হত্যার মামলা হওয়ার পর মামুন ও মালেক আমাদের কাছে লোকজন পাঠিয়েছিল মোট অংকের টাকা দিয়ে মিমাংসা করার জন্য। বাদ দেওয়া আসামিদের পুনরায়  এজাহারভুক্ত করে চার্জশিট দেওয়ার দাবি করেন।  

এ মামলায় প্রধান আসামি করা হয় জুলহাসের দ্বিতীয় স্ত্রীর প্রথম স্বামী শাহীন ও শাহীনের খালাতো ভাই মোয়াজ্জেম হোসেন,প্রথম স্ত্রীর ভাই আনিসুজ্জামান, ভগ্নিপতি মামুন ও তার ভাই আবদুল মালেককে। ঘটনাস্থলেই আটক করা হয় শাহীন ও মোয়াজ্জেম হোসেনকে। এ মামলায় দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ১৬ জানুয়ারী গ্রেফতার হন অপর আসামী আনিসুর রহমান । বর্তমানে তারা তিনজনেই কারাগারে রয়েছেন।  

গত ৩১ জানুয়ারী এজাহারভুক্ত আসামি মামুন ও মালেককের নাম বাদ দিয়ে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ধামরাই থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কামাল হোসেন। পরে মামলার বাদী জুলহাস উদ্দিনের বোন রিনা আক্তার চার্জশিটের বিরুদ্ধে আদালতে গত ১ মার্চ একটি নারাজি দেন। আদালত নারাজি গ্রহণ করে মামলাটি পূর্ণরায় সঠিক তদন্তের নির্দেশ দেন। 

উল্লেখ গত ৩ সেপ্টেম্বর বেসরকারি টিভি চ্যানেল বিজয় টিভির ধামরাই প্রতিনিধি ও ধামরাই প্রেসক্লাবের সহসভাপতি সাংবাদিক জুলহাস মানিকগঞ্জ থেকে যাত্রীবাহী বাস যোগে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বারবাড়িয়া বাস স্ট্যান্ডে নেমে বাড়ি যাওয়ার পথে দুপুর আড়াইটার দিকে বাস স্ট্যান্ডেই গলা কেটে হত্যা করা হয়।