• সোমবার   ২৩ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৯ ১৪২৯

  • || ২২ শাওয়াল ১৪৪৩

সাভার বাসস্ট্যান্ডে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগে জ্বলছে ফুটপাতের বাতি

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৭ জানুয়ারি ২০২২  

সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডে অবৈধভাবে ফুটপাত দখলের পাশাপাশি অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যবহার করছে হকাররা। ঝুঁকিপূর্ণ নিম্নমানের তার দিয়ে টানা এসব অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের কারণে যে কোনো মুহুর্তে ঘটতে পারে বড় ধরণের দুর্ঘটনা। পুরো বাজার বাসস্ট্যান্ড এলাকা জুড়ে মাকড়শার জালের মতো বিদ্যুতের তার ছড়িয়ে আছে। সন্ধ্যা হলেই সাভার বাসস্ট্যান্ডের ফুটপাতে জ্বলে ওঠে শতশত বৈদ্যুতিক বাল্ব।

স্থানীয় প্রভাবশালী ও একশ্রেণির দালাল এসব বিদ্যুৎ লাইনের সংযোগ দিয়ে চুটিয়ে অবৈধ ব্যবসা করছে। সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডে হকারদের বিদ্যুতের এ অবৈধ সংযোগ দিয়ে বছরে কোটি টাকার বেশি একশ্রেণির দুর্নীতিবাজ প্রভাবশালী মাস্তানরা পকেটস্থ করছে। আর এ অবৈধ বিদ্যুতের অধিকাংশই ব্যবহার করা হচ্ছে সন্ধ্যা বেলা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ফুটপাতের দোকানগুলোতে। সাভারে ফুটপাতে যে বিদ্যুৎ ব্যবহার করে তার পুরোটাই অবৈধ সংযোগ বলে জানা গেছে। ফুটপাতে বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য মিটারের কোন ব্যবস্থা নেই। অবৈধভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করলে জরিমানার বিধান আছে।

কিন্তু ফুটপাতের ক্ষেত্রে এসব বিধান শুধু কাগজে কলমেই সীমাবদ্ধ। জানা যায়, ফুটপাতের এসব বৈদ্যুতিক সংযোগ নিয়ন্ত্রণ করে একটি প্রভাবশালীচক্র। এজন্য তাদেরকে কয়েক গুণ বেশি টাকা দিতে হয়। একটি বাল্ব পাঁচ ঘণ্টা জ্বললে মাসে দু’শ’ টাকার বেশি বিল হওয়ার কথা নয়। কিন্তু ফুটপাতে জ্বালানোর জন্য প্রতিদিন দিতে হয় বাল্বপ্রতি ৩০ টাকা। অর্থাৎ মাসে ১টি বাতির জন্য ৯শ’ টাকা দিতে হয়। প্রতিদিন ১২শ’ বাতি থেকে তোলা হয় ৩৬ হাজার। যা মাসে দাড়ায় ১০ লক্ষ ৮০ হাজার এবং বছরে এর পরিমাণ গিয়ে দাড়ায় ১ কোটি ২৯ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা।

এই টাকা যাচ্ছে সংশ্লিষ্ট প্রভাবশালী মহল, বিদ্যুৎ বিভাগের সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পকেটে।  এভাবে সাভার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে কমপক্ষে ১২শ’ বাল্ব জ¦লছে। সাভার বাসস্ট্যান্ড এলাকার ফুটপাতের হকারদের সাথে কথা বললে কয়েকজন হকার জানান, মিটার আছে কি নাই তা তাদের জানা নাই। তবে তারা বাল্বপ্রতি ৩০ টাকা করে প্রতিদিন বিল দেন। রাস্তার হকাররা একটি এবং ফুটপাতের হকাররা তিনটি থেকে পাঁচটি লাইট কোন কোন দোকানে ব্যবহার করেন। ঐ প্রভাবশালী চক্রকে সেই হিসাবেই টাকা দিতে হয়।  

সাভার বাসস্ট্যান্ডের ফুটপাত ব্যবসায় অবৈধ বিদ্যুতের ব্যবহার দীর্ঘদিনের। বিদ্যুৎ বিভাগের অসাধু কর্মকর্তাদের সঙ্গে আঁতাত করে ফুটপাতের অস্থায়ী দোকানগুলো এই বিদ্যুৎ ব্যবহার করছে। মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা লুটপাট হচ্ছে। প্রতিদিন ফুটপাতে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ চালু থাকলেও এ নিয়ে যেন কোনো মাথা ব্যাথা নেই সংশ্লিষ্টদের। 

এ বিষয়ে তড়িৎ প্রকৌশলী আনিসুর রহমান বলেন, সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডের ফুটপাতে যেভাবে নিম্নমানের ক্যাবল দিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে তা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। যে কোন সময় এসব লাইন থেকে অগ্নিকান্ডের মতো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

সাভার বাসস্ট্যান্ডের ফুটপাতে অবৈধ বিদ্যুতের সংযোগের বিষয় দৈনিক ফুলকিকে ঢাকা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর শিমুলতলা জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মামুনুর রশিদ বলেন, ফুটপাতে বিদ্যুতের লাইনগুলো মূলত মাকের্ট অথবা দোকান থেকে নেওয়া হয়েছে। এতোদিন বিষয়টি আমাদের নজরে ছিলো না। যারা ফুটপাতে অবৈধ সংযোগ দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেই সাথে ঝুঁকিপূর্ণ নিম্নমানের ক্যাবলের মাধ্যমে টানা সংযোগগুলো দ্রুত অপসারণ করা হবে। এছাড়াও ফুটপাতের অবৈধ সংযোগের সাথে তার অফিসের কেউ জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানান তিনি।