• মঙ্গলবার   ১৬ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৯

  • || ১৮ মুহররম ১৪৪৪

বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াতে জাবিতে ‘আর্ট ফর লাইফ

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২ জুলাই ২০২২  

দেয়ালে সারিবদ্ধ ভাবে টাঙানো নানা ধরনের শিল্পকর্ম। কেউ ঘুরে ঘুরে সেগুলো দেখছেন, আবার কেউ পছন্দ হলেই কিনছেন। আবার কেউ শিল্পকর্মের বিক্রয়লব্ধ অর্থ ফান্ডে জমিয়ে রাখছেন। কারণ শিল্পকর্মের বিক্রয়লব্ধ পুরো অর্থ সিলেট-সুনামগঞ্জের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য ব্যয় করা হবে। এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) চারুকলা বিভাগ।

চারুকলা বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সিলেট ও সুনামগঞ্জসহ বন্যার্তদের সহযোগিতায় ‘আর্ট ফর লাইফ’ শীর্ষক শিল্পকর্ম প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে। গত ২২ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান মিলনায়তনে শুরু হওয়া এ প্রদর্শনী ২ জুলাই পর্যন্ত চলবে। প্রতি সপ্তাহের রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে রাত নয়টা এবং শুক্র ও শনিবার সকাল ১০টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত এ প্রদর্শনী চলছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, কয়েকজন শিক্ষার্থী নানা ধরনের শিল্পকর্ম আঁকছেন। আঁকা শেষ হলেই তা টাঙিয়ে দিচ্ছেন দেয়ালে। তারা সবাই বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থী। এছাড়া এ বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আগে আঁকা নানা ধরনের শিল্পকর্ম দেয়ালে সারিবদ্ধ ভাবে টাঙানো রয়েছে। যা দুশো টাকা থেকে শুরু করে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা হচ্ছে। অন্যদিকে কয়েকজন শিক্ষার্থী শিল্পকর্ম বিক্রির অর্থ ফান্ডে জমা রাখছেন।

আয়েশা আক্তার নামে এক দর্শনার্থী বলেন, সুনামগঞ্জ ও সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যায় মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছেন। সেসব মানুষের পাশে দাঁড়াতে এমন উদ্যোগ প্রশংসার দাবিদার। চারুকলা বিভাগের এমন উদ্যোগে নিজেকে সংযুক্ত করতে কয়েকটি শিল্পকর্ম কিনেছি।

আয়োজকরা জানান, সুনামগঞ্জ ও সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যার কবলে মানুষের জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। তাই সমাজ ও মানুষের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকেই বন্যার্তদের সহযোগিতায় এমন উদ্যোগ। প্রদর্শিত শিল্পকর্মের বিক্রয়লব্ধ পুরো অর্থই বানভাসী ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য ব্যয় করা হবে। এখানে চারুকলা বিভাগের অন্তত ৫০ জন শিল্পীর শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হচ্ছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ শামীম রেজা বলেন, শিল্পকর্মের মূল্য নির্ধারণ করা যায় না। তবুও শুধুমাত্র বন্যার্তদের সহযোগিতা করার লক্ষ্যে যে যা দাম দিতে চাচ্ছে তাতেই দিয়ে দিচ্ছি। এখন পর্যন্ত আমরা বেশ ভালো সাড়া পেয়েছি। অনেকেই আমাদের শিল্পকর্মগুলো পছন্দ করে কিনছেন। আবার অনেকেই আমাদের উদ্যোগ জানতে পেরে শিল্পকর্ম ক্রয় করছেন। আশা করি, খুবই স্বল্প পরিসরে হলেও আমরা বন্যার্তদের সহযোগিতা করতে পারবো।