• বৃহস্পতিবার   ০৬ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ২১ ১৪২৯

  • || ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

কুষ্টিয়ায় জেএমবি সদস্যসহ ৬ জনের যাবজ্জীবন

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১১ আগস্ট ২০২২  

কুষ্টিয়ায় পৃথক হত্যা মামলায় জেএমবি সদস্যসহ ৬ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম এবং বিশেষ জেলা ও দায়রা জজ মো. আশরাফুল ইসলাম এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- কুষ্টিয়া সদর উপজেলার খাজানগর এলাকার মজিবুর রহমানের ছেলে আজিজুর ইসলাম, কুবুরহাট দোস্তপাড়ার সামাদ সর্দারের ছেলে জয়নাল সর্দার, মাদরাসাপাড়া এলাকার আজিজুল হক খানের ছেলে সাইফুল ইসলাম খান, দৌলতপুর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর এলাকার আব্দুর রহমান ওরফে কালা কাজীর ছেলে সাইজুজ্জিন কাজী, ওয়াসিম আলী ও সিফাত বিশ্বাস।


আদালত সূত্র জানায়, ২০১৬ সালের ২০ মে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কুষ্টিয়া পৌরসভার মজমপুরের মৃত বজলুর রহমানের ছেলে হোমিও চিকিৎসক সানাউর রহমান ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাইফুজ্জামান মোটরসাইকেলে করে যাচ্ছিলেন। পথে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা তাদের গতিরোধ করে দুজনকে কুপিয়ে জখম করে। এতে ঘটনাস্থলে চিকিৎসক সানাউর রহমানের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় সানাউর রহমানের ভাই আনিছুর রহমান বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা করেন। ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল আদালতে মামলার চূড়ান্ত তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আজিজুর রহমান।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত আজিজুর ইসলাম, জয়নাল সর্দার, সাইফুল ইসলাম খান, সাইজুজ্জিন কাজীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। একইসঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।


এদিকে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ব্যবসায়ী রিয়াজুল ইসলামকে হত্যা দায়ে ওয়াসিম আলী ও ভাতিজা সিফাত বিশ্বাসকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাদের ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

আদালত সূত্র জানায়, ২০১৭ সালের ২৩ এপ্রিল বিকেলে কুমারখালী উপজেলার বাড়াদি গ্রামের মৃত আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে রিয়াজুল আসামিদের উচ্চ শব্দে গান বাজাতে নিষেধ করেন। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে রিয়াজুলকে কুপিয়ে হত্যা করে। পরদিন নিহতের ছেলে শহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা করেন। একই বছরের ১০ সেপ্টেম্বর আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। আদালত এ মামলার সাক্ষ্যপ্রমাণ শেষে এ কারাদণ্ড প্রদান করেন ।


আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অনুপ কুমার নন্দী জানান, পৃথক রায়ে চার জেএমবি সদস্যসহ ৬ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় ৯জনকে খালাস দেওয়া হয়েছে।