• বৃহস্পতিবার   ০৬ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ২১ ১৪২৯

  • || ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ যানবাহন

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১৫ আগস্ট ২০২২  


ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে রুট পারমিট ছাড়াই চলছে বিভিন্ন যাত্রীবাহী যানবাহন। কতটির রুট পারমিট আছে এবং কতটির নেই, সেই তথ্যটিও জানাতে পারেনি বিআরটিএ কিংবা হাইওয়ে পুলিশ। বিভিন্ন কোম্পানির নাম দিয়ে এসব যানবাহন মহাসড়ক দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এবং দিন দিন এগুলোর সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। এসব রুট পারমিটবিহীন অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ ও প্রতিযোগিতামূলক চলাচলের কারণে অহরহই ঘটছে দুর্ঘটনা।

সরেজমিন জানা গেছে, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গাবতলী, সায়েদাবাদ ও গুলিস্থান থেকে বিভিন্ন নামে মানিকগঞ্জ ও পাটুরিয়া ঘাটে যানবাহন চলাচল করছে। এর মধ্যে গাবতলী থেকে পাটুরিয়া পর্যন্ত ২১৬টি সেলফি পরিবহন, ৩২টি দ্রুতগতি পদ্মা পরিবহন ও ৩০টি যাত্রীসেবা পরিবহন ব্যানারের বাস চলাচল করে। 

চিটাগাং রোড থেকে পাটুরিয়া পর্যন্ত চলাচল করছে নীলাচল পরিবহনের ৭০টি গাড়ি। গুলিস্থান থেকে মানিকগঞ্জ ও পাটুরিয়া পর্যন্ত ৬০টি শুভযাত্রা এবং ১২টি এসি লিংক চলাচল করছে। পাটুরিয়া থেকে নবীনগর পর্যন্ত চলাচল করছে ১৫টি উনিশে পরিবহন। জেলার অভ্যন্তরীণ আঞ্চলিক সড়কে চলাচল করছে স্বপ্ন পরিবহনের ২০০ গাড়ি।


এসব গাড়ির মধ্যে রুট পারমিট রয়েছে সেলফি পরিবহনের ৬৫টির, নীলাচল পরিবহনের ৭০টির এবং শুভযাত্রার ৬০টির। বাকি পরিবহনগুলোর রুট পারমিট নেই। যেসব যাত্রীবাহী যানবাহনে রুট পারমিট নেই তারা মালিক সমিতি, শ্রমিক সমিতি, হাইওয়ে থানা ও ট্রাফিক পুলিশকে ম্যানেজ করে চলাচল করছে। তবে মাঝে মধ্যে মামলার শিকারও হতে হয়।


এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ বিআরটিএ পরিদর্শক শফিকুল ইসলাম জানান, রুট পারমিটবিহীন গাড়িগুলোর সঠিক তথ্য তাদের কাছে নেই। তবে মাঝে মধ্যে অভিযান চালিয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

মানিকগঞ্জ বাস মালিক সমিতির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জানান, এ কথা ঠিক যে ঢাকা থেকে মানিকগঞ্জ হয়ে পাটুরিয়া ঘাটে যেসব পরিবহনে যাত্রী নেয়া হচ্ছে তাদের অধিকাংশেরই রুট পারমিট নেই।

সেলফি পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জালাল উদ্দিন জানান, তাদের ১৭০টি গাড়ির মধ্যে গাবতলী থেকে পাটুরিয়া ঘাট পর্যন্ত ৬৫টি গাড়ির রুট পারমিট রয়েছে। নীলাচল পরিবহনের মানিকগঞ্জ ইনচার্জ চণ্ডি চক্রবর্তী বলেন, তাদের চিটাগাং রোড থেকে পাটুরিয়া পর্যন্ত ৭০টি গাড়ির রুট পারমিট রয়েছে। দ্রুতগতির পদ্মা পরিবহনের মানিকগঞ্জ চেকিংম্যান রফিকুল ইসলাম বলেন, তাদের বর্তমানে ৩২টি গাড়ি চলাচল করছে। কতগুলোর রুট পারমিট আছে, সে তথ্য জানা নেই।

বরংগাইল হাইওয়ে থানার ওসি জাকির হোসেন ও মানিকগঞ্জ ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক কে এম মিরাজ বলেন, তাদের অভিযান পরিচালনার সময় যদি কোনো গাড়ির রুট পারমিট না থাকে, তখনই সেই গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা হয়ে যায়।

জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ জানান, রুট পারমিট ছাড়া যাত্রীবাহী গাড়ি রাস্তায় নামানোর কথা না। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে পারমিটবিহীন যানবাহনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ দিকে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় জেলা প্রশাসক জানান, বিভিন্ন পরিবহনের কয়টি গাড়ি আছে এবং কয়টির রুট পারমিট নেই তার সঠিক তথ্য প্রদানের জন্য মানিকগঞ্জ বিআরটিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তথ্য পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।