• বুধবার   ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৯ ১৪২৯

  • || ১০ রজব ১৪৪৪

সাবেক মন্ত্রী ও আ. লীগ নেতা এ বি এম গোলাম মোস্তফা আর নেই

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ৪ ডিসেম্বর ২০২২  

কুমিল্লা-৪ (দেবিদ্বার) আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য এ বি এম গোলাম মোস্তফা আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি জাতীয় পার্টির শাসনামলে মন্ত্রী ছিলেন। এর আগে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে সচিবের পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) রাত ৯টায় রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৮৮ বছর বয়সে মারা যান তিনি। বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে দীর্ঘদিন ধরে ভুগছিলেন তিনি। গোলাম মোস্তফার ব্যক্তিগত সহকারী আক্তার হোসেন শনিবার রাতে গণমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন এবং গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

দেবিদ্বার উপজেলার বড়শালঘর গ্রামের বাসিন্দা গোলাম মোস্তফা আমৃত্যু কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ছিলেন। তিনি প্রয়াত শিক্ষামন্ত্রী মফিজউদ্দিন আহমেদের দ্বিতীয় ছেলে। তাঁর মৃত্যুতে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছিল।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ বি এম গোলাম মোস্তফা ১৯৩৪ সালের ২ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লায় জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৫৪ ও ১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন। ১৯৫৬ সালে পাকিস্তান সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা শেষ করে সিভিল সার্ভিসে বেশ কয়েকটি পদে দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি বাংলাদেশের প্রথম বেতন কমিশনের সদস্যসহ ১৭ বছরে সাত মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে তিনি ১৯৮৮ সালে জ্বালানি ও প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রী এবং বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও পানি সম্পদ মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। সবশেষ ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে কুমিল্লার দেবিদ্বার থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম মোস্তফা ছিলেন সম্ভ্রান্ত পরিবারের উদার মনের একজন মানুষ। তার মৃত্যুতে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ তথা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে হারিয়েছেন। তিনি খুবই জনপ্রিয় ছিলেন মানুষের কাছে। তার মৃত্যুতে দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদ ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা গভীরভাবে শোকাহত।