• শনিবার ২০ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৫ ১৪৩১

  • || ১২ মুহররম ১৪৪৬

চমকের নেপথ্যে কংগ্রেস

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ৫ জুন ২০২৪  

এবারের ভারতের লোকসভা নির্বাচনের ফলে চমক জাগিয়েছে বিরোধী দলগুলোর জোট ইন্ডিয়া। এই চমকের পেছনে এককভাবে বড় ভূমিকা রেখেছে দেশের প্রাচীনতম দল জাতীয় কংগ্রেস। এবারের লোকসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গঠিত বিরোধী জোট ইন্ডিয়ার নেতৃত্বের পুরোভাগে ছিল রাহুল গান্ধী ও তাঁর দল কংগ্রেস। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিজেপিকে মোকাবেলায় ইন্ডিয়া জোট বহু টানাপড়েনের পরও ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করেছে।

এই জোটে রয়েছে কংগ্রেস, সমাজবাদী পার্টি, আম আদমি পার্টি, তৃণমূল কংগ্রেস, বাম ফ্রন্ট, ডিএমকেসহ ভারতের ২৮টি বিরোধী রাজনৈতিক দল। আর এই জোটের চেয়ারপারসন কংগ্রেসেরই বর্তমান সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে। ইন্ডিয়া জোট ২৩১ আসন জিতেছে। এর মধ্যে কংগ্রেস একাই পেয়েছে ৯৯টি। দশ বছর আগে ২০১৪ সালের নির্বাচনে খুব খারাপ ফল করে খাদের কিনারায় চলে গিয়েছিল কংগ্রেস দল। সেবার তাদের ভাগ্যে মাত্র ৪৪টি আসন জুটেছিল। ২০১৯ সালের নির্বাচনেও দলটি নিতান্ত কম, মাত্র ৫২ আসন পায়। সেই কংগ্রেস ঘুরে দাঁড়িয়ে এবার প্রায় শত আসন পেয়ে শুধু নিজেই নয়, তার জোটসঙ্গীদেরও টেনে তুলতে বড় ভূমিকা রেখেছে। নির্বাচনে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটকে রীতিমতো টক্কর দিয়েছে ইন্ডিয়া জোট।

নির্বাচনী ফলে ইন্ডিয়া জোটের এই শক্তিশালী অবস্থানের বড় কারণ হলো কংগ্রেসের পুনরুজ্জীবন। কংগ্রেসকে ব্যর্থতার অতল গহ্বর থেকে তুলে এনেছেন গান্ধী পরিবারের নতুন প্রজন্মের নেতা রাহুল গান্ধী। প্রায় সাধুসন্তের অধ্যবসায় নিয়ে দুই দফা ‘ভারত জোড়ো পদযাত্রা’ করেছেন তিনি। রাজ্যে রাজ্যে ঘুরে দেশবাসীর কথা শুনেছেন। এই কর্মসূচি কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে বড় ভূমিকা রেখেছে। প্রধান বিরোধী দলের শক্তিতে শক্ত হয়েছে বিরোধী জোটের পায়ের নিচের মাটিও। এবারের নির্বাচনী সাফল্যের মধ্য দিয়ে রাহুল গান্ধী হয়তো দেশের প্রাচীনতম রাজনৈতিক দলটির ভবিষ্যৎ হিসেবে নিজের স্থানটি পাকা করে নেবেন। ৫৩ বছর বয়সী রাহুল রাইবেরিলি ও ওয়েনাড় থেকে বিপুল ভোটে জিতেছেন।

হতাশায় নিমজ্জিত কংগ্রেসকে উজ্জীবিত করতে রাহুলের ভারত জোড়ো পদযাত্রা শুরু হয়েছিল ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে। কংগ্রেসের পতাকা উড়িয়ে দেশের দক্ষিণতম প্রান্ত তামিলনাড়ুর কন্যাকুমারী থেকে যাত্রা শুরু করেছিলেন রাহুল গান্ধী। এই যাত্রায় টানা পাঁচ মাস ভারতের ১২টি রাজ্য ও দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্য দিয়ে কয়েক হাজার কিলোমিটার পথ অতিক্রম করেছেন তিনি। পদযাত্রায় ঘৃণা আর হিংসার অবসান ঘটিয়ে ভারতকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার ডাক দিয়েছিলেন রাহুল। বিপুলসংখ্যক সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। জানতে চান তাদের চাওয়া-পাওয়া।