• শনিবার ২০ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৫ ১৪৩১

  • || ১২ মুহররম ১৪৪৬

কিশোর গ্যাংয়ের ৪ সদস্য গ্রে‘প্তা‘র

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১৬ জুন ২০২৪  

ঈদে ফুর্তি করার জন্য টাকা দরকার আর সেই টাকা সংগ্রহে বন্ধুর গলা কেটে অটোরিকশা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। গলা কেটে জখমের পর ওই তরুণকে মৃত ভেবে ফেলে যান ছিনতাইকারীরা। তবে ওই চালক বেঁচে যান। ভুক্তভোগী ও ছিনতাইকারী- সবাই পূর্বপরিচিত ও বন্ধু। অটোরিকশাচালক বন্ধুকে ডেকে নির্জন স্থানে নিয়ে হত্যাচেষ্টা চালান অন্যরা। 

বর্তমানে রাজধানীর তিনি একটি বেসরকারি হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন রয়েছেন। আর এ ঘটনায় ৪ বন্ধুকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার (১৫ জুন) দুপুরে ঢাকার পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কেরানীগঞ্জ সার্কেল) শাহাবুদ্দীন কবীর, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন অর রশিদ ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) অলক কুমার প্রমুখ।

ভুক্তভোগী অটোরিকশা চালকের নাম শাওন দাস (২০)। তিনি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের মুহুরিপট্টি এলাকার রাম চন্দ্র দাসের ছেলে। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন কিশোর গ্যাং হ্যাঁচকা গ্রুপের প্রধান শাকিল আহমেদ ওরফে হ্যাঁচকা শাকিল (২০), সজীব মিয়া (২১), আলমগীর হোসেন (২০) ও আনন্দ (২০)। বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকার পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, গত বুধবার রাতে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এর মাধ্যমে পুলিশ জানতে পারে, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের স্বপ্নধারা মডেল টাউন এলাকায় শাওন নামের এক অটোরিকশাচালক গুরুতর জখম অবস্থায় পড়ে আছেন। পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতালে নিয়ে যায়।

শাওনের বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন। পরে পুলিশ তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় ও ঘটনাস্থলের আশপাশের এলাকার সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষণ করে ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের শনাক্ত করে। এরপর কিশোর গ্যাং হ্যাঁচকা গ্রুপের শাকিল, সজীব, আলমগীর ও আনন্দকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার আনন্দ গলা কাটার কাজে ব্যবহৃত চাকু সরবরাহ করেছিলেন। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে চাকু ও অটোরিকশাটি জব্দ করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে পুলিশ সুপার দাবি করেন, শাকিল, সজীব ও আলমগীর ঈদে ফুর্তি করার টাকা জোগাড় করতে বন্ধু শাওনের অটোরিকশা ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করেন। বন্ধু শাওনকে কৌশলে অটোরিকশাসহ ঘুরতে যাবে বলে ডেকে নিয়ে আসেন আলমগীর। একপর্যায়ে তারা তাকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের স্বপ্নধারা মডেল টাউনের ভেতরে নির্জন জায়গায় নিয়ে যান। 

সেখানে পৌঁছানোর পর সজীব পেছন থেকে শাওনের মুখ চেপে ধরেন। এরপর মাটিতে শুইয়ে তার পা চেপে ধরেন আলমগীর। এরপর চাকু দিয়ে শাওনকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করেন শাকিল। আলমগীর ও সজীব চাকু দিয়ে শাওনের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করেন। কিছুক্ষণ পর শাওন নিস্তেজ হয়ে গেলে তারা মৃত ভেবে তাকে ফেলে পালিয়ে যান এবং অটোরিকশাটি ঘটনাস্থলের পাশের একটি জঙ্গলে লুকিয়ে রাখেন। কিন্তু ভাগ্যক্রমে শাওন বেঁচে যান। প্রায় দুই ঘণ্টা পর পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে শাওনকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে সেখানে তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন।