• মঙ্গলবার   ০৫ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ২১ ১৪২৯

  • || ০৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

প্রশ্নপত্র ফাঁসের খবর পেলে ফ্রি কল করুন ৯৯৯ নম্বরে

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৭ জানুয়ারি ২০১৯  

বর্তমান সরকার আসন্ন এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁস রোধ ও পরীক্ষা সুশৃঙ্খল করতে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। জাতির মেরুদণ্ড শিক্ষা ধ্বংসের এ মরণ খেলা বন্ধ করতে এ বছর হার্ডলাইনে অবস্থান নিয়েছে প্রশাসন। আর এ নিয়ে কাজ করছে প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগ।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলছেন, যেসব পদক্ষেপ মানুষের পক্ষে নেওয়া সম্ভব তার সবই নেওয়া হয়েছে প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে। প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী চক্রের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, যারা প্রশ্নপত্র ফাঁস করে তারাও এক ধরনের সন্ত্রাসী। এই প্রশ্ন ফাঁসকারী সন্ত্রাসীদের জঙ্গিদের মতো করেই নিশ্চিহ্ন করা হবে।

আসন্ন এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে একাধিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। যার মধ্যে ৯৯৯-এ কল করে তথ্য প্রদান অন্যতম। প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো আলামত পেলেই হটলাইন ৯৯৯ নম্বরে জানাতে বলা হয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও রাখা হচ্ছে কড়া নজরদারি। এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমান সরকার এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কথা বিবেচনায় রেখে এই সুবিধা চালু করেছে। যার মাধ্যমে কেউ যদি হোয়াটস অ্যাপ, ভাইবার বা ফেসবুকের কোনো গ্রুপে প্রশ্ন ফাঁস করে বা কেউ প্রশ্ন ফাঁসে সঙ্গে জড়িত আছে বলে মনে হলে দেশের নাগরিক হিসেবে সেই খবর ৯৯৯ নম্বরে কল করলে তাৎক্ষণিক সমাধান পাওয়া যাবে। একটি কলের মাধ্যমে নিকটস্থ থানায় যোগাযোগ করে অপরাধীকে আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত সাজা প্রদান করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

২ ফেব্রুয়ারি শুরু হচ্ছে এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষা। এই পরীক্ষা সামনে রেখেই এসব পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ পুলিশ। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশ্ন ফাঁসকারী ও গুজব রটনাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনতে সাইবার ইউনিট ও পুলিশের সমন্বয়ে ১০টি স্পিয়ার হিট টিমও গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে প্রশ্নপত্র প্রণয়ন, পরিবহন, বিতরণসহ সব পর্যায়ে জোরদার করা হয়েছে কড়া নিরাপত্তা। এরমধ্যে প্রশ্নের একাধিক সেট প্রণয়ন ও পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে প্রশ্নের সেট কোড নির্ধারণ অন্যতম। জানা গেছে, সারা দেশের কেন্দ্রগুলোতে পরীক্ষার দিন সকালে ট্রেজারি থেকে পরীক্ষার প্রশ্ন সংগ্রহ করতে হবে। ট্রেজারির নিকটবর্তী কেন্দ্রগুলোতে মাত্র আধ ঘণ্টা আগে প্রশ্ন সংগ্রহ করতে হবে। আর পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মোবাইল নম্বরে সেট কোড ব্যবহারের নির্দেশনার এসএমএস যাওয়ার পর প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খুলতে পারবে শিক্ষকরা।
এ প্রসঙ্গে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল জানান, ‘সরকার সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা গ্রহণে অনেক পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। এটা কনফিডেনসিয়াল বিষয়, স্টেট সিকিউরিটি। আমরা বিশ্বাস করি, কেউ অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও আইনের চোখ ফাঁকি দিয়ে প্রশ্নপত্র ফাঁস করতে সক্ষম হবে না। সরকার প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধ করে মেধার মূল্যায়ণ করতে বদ্ধপরিকর।’