• সোমবার   ২৬ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১০ ১৪২৮

  • || ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

গরমে কলা খাওয়ার যত উপকারিতা

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৮ মে ২০২১  

বারোমাসি ফল কলা। সকালের নাস্তায় বেশ মানিয়ে যায় পুষ্টি উপাদান সমৃদ্ধ এই ফলটি। খেতেও সুস্বাদু। কলা শরীরের শক্তি যোগাতে দারুণ কার্যকর। এছাড়াও এই ফলটি স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। অন্যান্য সময়ের সঙ্গে সঙ্গে গরমে একাধিক স্বাস্থ্য সুবিধা পেতে চিকিৎসকরা কলা খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।  

ভারতীয় পুষ্টিবিদ রুজুতা দেবাকর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গরমে কলা খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বলেন, সকালে, শরীরচর্চার আগে ও পরে অথবা নাস্তায় কলা খাওয়া ভালো।

চলুন এবার জেনে নেয়া যাক কলা খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে-

>> সকালের শুরুতে কলা খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারী। কারণ কলা কম অ্যাসিডিক ফল, তাই এই ফলটি দিন শুরু করার জন্য আদর্শ খাবার। এছাড়াও কলা অ্যাসিডিটি, মাইগ্রেইন, এমনকি পায়ের পেশির টান দূর করতে সাহায্য করে।

>> দিনের মধ্যভাগের নাস্তায় কলা খেতে পারেন। ‘হাইপোথাইরোডিজম’ একটা শারীরিক অবস্থা যখন শরীর ঠিকমতো থাইরয়েড হরমোন তৈরি করতে পারে না। কলা শক্তির ভালো উৎস এবং এটা হাইপোথাইর‍য়েডিজম সমস্যা কমায়। কলা মন ভালো রাখে এবং দিনের বেলায় কলা খেলে তা শক্তি সরবারহ করে।

>> দুধ, চিনি ও রুটির সঙ্গে কলা খাওয়া ভালো। রুজুতার মতে, স্বাস্থ্যকর খাবারের এই সমন্বয় ঐতিহ্যবাহী একটা খাবার। এটি মাথাব্যথা এবং মাইগ্রেইনের সমস্যা দূর করতে কার্যকর। হজম করা সহজ বলে খাবার হিসেবে এটি শিশুদের জন্যও উপকারী।

>> দিনের শেষে কলা খেতে পারেন। কারণ কলা আঁশ সমৃদ্ধ, যা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে। কলাতে ফ্রুক্টোজ কম হওয়ায় এটা আইবিএস বা পেটের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।

>> মিল্কশেইক হিসেবে কলা খান। রুজুতা বলেন, দিনে যদি কম খাওয়ার অভ্যাস থাকে তাহলে কলার মিল্ক শেইক খেতে পারেন। এছাড়া রাতে পড়ার সময়, অনলাইন ক্লাসের ফাঁকে বা শরীরচর্চা করার পরে নাস্তা হিসেবে কলার মিল্ক শেইক খাওয়া আদর্শ।

আরও যা জানা জরুরি

কলা উপকারী পুষ্টি উপাদান সমৃদ্ধ এবং হজম করা সহজ। তাই রুজুতা কলা খাওয়ার পরামর্শ দেন। কলা কেনার সময় স্থানীয় জাতের কলা বেছে নেয়া ভালো। এগুলো ভেজাল মুক্ত ও স্থানীয় চাহিদার ওপর ভিত্তি করে উৎপাদন করা হয়। তাই নির্দ্বিধায় খাওয়া যায়।