• মঙ্গলবার   ৩০ নভেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

লকডাউনে দূষণে ভারতে ৬০ হাজার মানুষের মৃত্যু

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

লকডাউনের মধ্যেও বায়ু দূষণের ক্ষতিকর প্রভাবে গেল বছর ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে মৃত্যুর হার বিশ্বে ছিল সবচেয়ে বেশি। দিল্লিতে ২০২০ সালে প্রায় ৬০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয় শুধু বায়ু দূষণের কারণেই।

করোনা মোকাবিলায় ২০২০ সালের শুরু থেকেই লকডাউনে চলে যায় ভারত। সব রকম কার্যক্রম প্রায় ব্ন্ধ থাকায়, রাস্তায় মানুষের উপস্থিতি খুব একটা ছিল না। এতে যানবাহনের দূষণও তুলনামূলক কম হয়। তবুও দেশটির বড় বড় কয়েকটি শহরে গেল বছর কেবল বায়ু দূষণের ক্ষতিকর প্রভাবেই মারা গেছেন, এক লাখ ২০ হাজারের বেশি মানুষ। যার মধ্যে রাজধানী নয়াদিল্লিতেই মৃত্যু হয়েছে ৫৪ হাজারের মতো। ভয়াবহ এ তথ্য দিয়েছে পরিবেশ সংস্থা গ্রিনপিস। তারা বলছে, কেবল বায়ু দূষণের কারণেই ভারতে অর্থনৈতিক ক্ষতি দুই লাখ কোটি রুপি।

কৃষি জমিতে খড় পোড়ানো আর দীপাবলির সময় আতশবাজির ধোঁয়ার সঙ্গে হিম শীতল হাওয়া এক হয়ে মিশে সৃষ্টি হয় তীব্র বায়ু দূষণ। অতিরিক্ত জনসংখ্যার প্রভাব, যানবাহনের কালো ধোঁয়াও এর জন্য সমানভাবে দায়ী। তবে নানাভাবে সচেতনতা গড়ার চেষ্টা করেও সংকট দূর করতে পারছে না কর্তৃপক্ষ।
 


শুধু দিল্লি নয়, বেগতিক অবস্থা বেঙ্গালুরু, মুম্বাই, হায়দ্রাবাদ, চেন্নাই ও লখনউয়ের মতো শহরেও। এসব শহরের বাসিন্দাদের ফুসফুস, শ্বাসকষ্টের নানা জটিলতা, ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগ দেখা দিচ্ছে, ঘটছে প্রাণহানি। পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ার জন্য, জলবায়ু পরিবর্তনকেই দুষছে জাতিসংঘ।

মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা নিয়ে এখন আমরা আত্মঘাতি যুদ্ধে নেমেছি।

তিনি আরো জানান, মানুষ এখন পরিবেশের সঙ্গে রীতিমতো যুদ্ধ করছে। বিশ্বকে বাঁচাতে পদক্ষেপ নিতে হবে। ২০২১ সালই কিছু একটা করার, গণসচেতন বাড়ানোর মোক্ষম সময়।

কার্বন নিঃসরণ কমানো, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিরোধসহ জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় প্রভাবশালী দেশগুলোকে এক হয়ে কাজ করার আহ্বানও জানান তিনি।