• মঙ্গলবার   ১৬ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৯

  • || ১৮ মুহররম ১৪৪৪

মানিকগঞ্জ-ঢাকা রুটে রেললাইনের পরিকল্পনা

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৭ মে ২০২২  

গাজীপুরের টঙ্গী থেকে মানিকগঞ্জ হয়ে পাটুরিয়া পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাই করবে তারা।

রেলওয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে ৪৮ কোটি ৯ লাখ টাকার একটি সম্ভাব্যতা যাচাই প্রকল্প অনুমোদনের জন্য গত মাসে পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে।

তাদের মতে, রেললাইনটি তৈরি হয়ে গেলে তা মানুষকে মানিকগঞ্জ ও এর পার্শ্ববর্তী স্থানগুলোর মতো জায়গায় বসবাসে উত্সাহিত করবে। তারা দৈনন্দিন কাজের জন্য দ্রুত ঢাকা থেকে আসা-যাওয়া করতে পারবে, যা শেষ পর্যন্ত রাজধানীর ওপর থেকে চাপ কিছুটা হলেও কমাবে। এ ছাড়া যারা ঢাকা এবং উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চলের মধ্যে যাতায়াত করবে, তারা একটি নতুন রুট পাবে, যা যাতায়াতের সময় কমিয়ে আনবে।

তবে, এসবের জন্য বেশ কিছুটা সময় লাগবে। পরিকল্পনা কমিশন যদি প্রকল্পটির অনুমোদন দেয়, তবে রেলওয়ে সম্ভাব্যতা যাচাই পরিচালনা ও নকশাটি তৈরি করার জন্য পরামর্শক নিয়োগ দেবে।


রেলওয়ের কর্মকর্তারা আরও জানান, যাচাই শেষে প্রকল্পটি কার্যকর উপযোগী বলে মনে করা হলে বাংলাদেশ রেলওয়ে তহবিল প্রাপ্যতার ওপর নির্ভর করে এটি নির্মাণের জন্য অন্য একটি প্রকল্প নেবে।


তবে, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে পদ্মা নদীর ওপর দ্বিতীয় সেতু নির্মাণ না হওয়া পর্যন্ত প্রকল্পটি কার্যকর নাও হতে পারে বলে কর্মকর্তাদের কেউ কেউ মনে করেন।

দীর্ঘদিন ধরেই দৌলতদিয়া রেল নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে।

এ ছাড়া, ঢাকা থেকে চট্টগ্রামের মধ্যে দূরত্ব কমাতে ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ হয়ে কুমিল্লা রুটে রেলপথ নির্মাণের জন্য রেলওয়ের কাজ করা উচিত বলে তারা মনে করেন।

তবে, রেলওয়ের অন্য কর্মকর্তারা বলছেন, যেহেতু সরকার নিশ্চিতভাবেই দ্বিতীয় সেতু নির্মাণ করতে যাচ্ছে, তাই তারা আগে থেকেই ঢাকা-পাটুরিয়া রেলপথের পরিকল্পনা করতে চান।

যুক্তি হিসেবে তারা বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পের কয়েক বছর পর পদ্মা রেল-সংযোগ প্রকল্প নেওয়া হয়। সে কারণে তারা একইসঙ্গে সেতুতে সড়ক ও রেল উভয় কার্যক্রম শুরু করতে পারছে না।

ঢাকা-মানিকগঞ্জ লাইন
ঢাকা থেকে মানিকগঞ্জ শহর হয়ে পাটুরিয়া পর্যন্ত রেল লাইনের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছেন মানিকগঞ্জের বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা।

বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্র জানায়, রেলওয়ে প্রায় ৩ বছর আগে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য একটি উদ্যোগ নিয়েছিল এবং বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়েকটি বৈঠকও করেছিল।

তারা আরও জানান, আলোচনার পর এ বিষয়ে পরিকল্পনা কমিশনের বেশ কিছু প্রশ্ন ছিল এবং উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) পুনর্বিবেচনা করতে বলা হয়েছিল। সেসব প্রশ্নের উত্তর দিয়ে ও ডিপিপি নতুন করে সাজানোর পর রেল মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে গত মাসে সেগুলো পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়।

প্রস্তাব অনুযায়ী, সম্ভাব্যতা যাচাই, নকশা ও টেন্ডার ডকুমেন্টের পরামর্শ সংশ্লিষ্ট সার্ভিসের জন্য প্রায় ৩৪ কোটি টাকা ব্যয় করা হবে।

আর প্রকল্প ব্যবস্থাপনা, শো ডকুমেন্টসসহ অন্যান্য কাজে ব্যবহার করা হবে প্রায় ১৪ কোটি টাকা।

গাজীপুরের টঙ্গী থেকে মানিকগঞ্জ হয়ে পাটুরিয়া পর্যন্ত রেল সংযোগ নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাই করবেন নিয়োগ পাওয়া পরামর্শক।

টঙ্গী থেকে কেন ট্র্যাকটি নির্মাণ করা হবে, জানতে চাইলে বাংলাদেশ রেলওয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, রাজধানীর মধ্য দিয়ে সরাসরি লাইন দেওয়া সম্ভব নাও হতে পারে। তাই টঙ্গী নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, 'তবে, পরামর্শক সব কার্যকর বিকল্পগুলো পরীক্ষা করবেন।'

এ বিষয়ে মন্তব্যের জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনি।