• মঙ্গলবার   ১৬ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৯

  • || ১৮ মুহররম ১৪৪৪

সিংগাইরে উদ্ধারকৃত খাস জমিতে হচ্ছে আশ্রয়ণ প্রকল্প

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ৪ জুন ২০২২  

উপজেলার ধল্লা ইউনিয়নের ফোর্ডনগরে ৩১২ শতাংশ খাস জমি অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে উদ্ধার করে সেখানেই করা হচ্ছে ভূমিহীনদের আশ্রয়ণ প্রকল্প। এই প্রকল্পে ৯৪টি ঘর নির্মাণ করা হবে। প্রতিটি ঘরের মূল্য ধরা হয়েছে ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা; যা মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে ভূমিহীনদের দেওয়া হবে। 

জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফের নির্দেশে সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাম্মা লাবিবা অর্ণব বিশেষ অভিযান চালিয়ে খাস জমিগুলো উদ্ধার করেন। সম্প্রতি অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) মো. জহিরুল ইসলাম ঐ জমিতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজ উদ্বোধন করেন। উপস্থিত ছিলেন জেলা ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা মেহের নিগার সুলতানা। বিভাগীয় কমিশনার মো.খলিলুর রহমান বুধবার নির্মাণাধীন আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন এবং নির্মাণাধীন কাজের প্রশংসা করেন। জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফ, ডিডি এলজি (উপ-সচিব) মোহা. সফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মাসুদ রানা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাম্মা লাবীবা অর্ণব, ধল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া, জয়মন্টপ ইউপি চেয়ারম্যান শাহাদাত্ হোসেন এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এলাকায় নামীদামী কোম্পানির ফার্নিচার কারখানার এক মালিক কোটি কোটি টাকার খাস জমি ও নদী দখল করে রেখেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। 

ধল্লা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, ফোর্ডনগর মৌজায় সাতটি দাগের ৩১২ শতাংশ জমি উদ্ধার করা হলেও ৩৬০ নম্বর দাগের ৮৩ শতাংশ জমির মধ্যে ৩৩ শতাংশ জমি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য রেখে বাকি ৫০ শতাংশ জমিতে ২৪টি পরিবারের জন্য ৯৪টি ঘর উত্তোলন করা হবে। যা আগামী মার্চের ১৭ কিংবা ২৬ তারিখের মধ্যে গৃহদান কর্মসূচির আওতায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে যাদের ঘর নেই তাদের মধ্যে বিতরণ করা হবে। এ ছাড়া পর্যায়ক্রমে ফার্নিচার কারখানাসহ সবগুলোতেই উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।