• রোববার ২১ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৬ ১৪৩১

  • || ১৩ মুহররম ১৪৪৬

মানিকগঞ্জ চুন ও রং দিয়ে খেজুরের গুড়

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৫ জানুয়ারি ২০২৩  

ভেজাল গুড় খাওয়ার কারণে মানবদেহে বিভিন্ন জটিলতা দেখা দিতে পারে বলে জানিয়েছেন মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ মানবেন্দ্র সরকার। তিনি বলেন, এসব ভেজাল গুড় খাওয়ার ফলে গ্যাস্ট্রিক ও আলসার হতে পারে। এ ছাড়া লিভার ও কিডনির সমস্যা হতে পারে। মাত্রাতিরিক্ত ভেজাল গুড় খাওয়ার ফলে মৃত্যুও ঘটতে পারে।

মঙ্গলবার সকালে সরেজমিন দেখা গেছে, হরিরামপুরের গোপীনাথপুর ইউনিয়নের উজানপাড়া গ্রামে বাড়িতে শেখ মাছেম আলী (৬০) রসের সঙ্গে চিনি ও চুন মিশিয়ে চুলায় জ্বাল দিচ্ছেন। বাড়ির সদস্যরা তাঁকে সহযোগিতা করছিলেন। মাছেম আলী বলেন, ছয় কেজি রসের সঙ্গে পাঁচ কেজি চিনি দিয়ে খেজুরের গুড় তৈরি করছেন। এতে আট কেজির মতো গুড় হবে। এসব খেজুরের গুড় হিসেবে বিক্রি করা হবে। প্রতি কেজি গুড় ১৫০ টাকা কেজি দরে পাইকারি বিক্রি করে থাকেন মাছেম।

খবর পেয়ে গতকাল ভেজাল গুড় তৈরির অপরাধে মাছেম আলীকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করেন জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান রুমেল। সেই সঙ্গে তাঁকে ভেজাল গুড় তৈরি না করার নির্দেশ দেন তিনি। আসাদুজ্জামান রুমেল বলেন, ভেজাল খেজুরের গুড় তৈরি ও বিক্রি বন্ধে হরিরামপুর এবং শিবালয় উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে গাছিবাড়ি ও বাজারগুলোয় অভিযান চালানো হচ্ছে। জরিমানার পাশাপাশি ভেজাল গুড় ধ্বংস করা হচ্ছে। এরপরও ভেজাল গুড় তৈরি ও বিক্রি করা হলে আরও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।