• শনিবার ২৫ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

ঢাকায় বিকেলেই রাতের আঁধার

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ৮ জুন ২০২৩  

টানা দাবদাহের পর কিছুটা স্বস্তি দিয়েছে বৃষ্টি। যদিও খুবই সামান্য বৃষ্টি হয়েছে, তবে তা কমিয়েছে গরমের তীব্রতা। অবশ্য আরও কিছুটা স্বস্তির খবর দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সারাদেশে বৃষ্টি বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। এতে দিনের তাপমাত্রা আরও কমে দূর হতে পারে তাপপ্রবাহ।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) সকাল থেকেই ঢাকায় গুমোট আবহাওয়া। বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসে বৃষ্টির খবর। বিকেলে এ গুমোট ভাব আরও বেড়ে রাজধানী ঢাকায় নেমে আসে রাতের আঁধার। গরমে হাঁসফাঁস করা মানুষের একটাই চাওয়া, এই বুঝি নামলো বৃষ্টি। রাজধানীর বাড্ডা এলাকার মুখলেছুর রহমান মুকুল বলেন, বিগত বেশ কিছুদিন ধরেই গরমে কষ্ট পাচ্ছে মানুষ। এর ওপর আবার লোডশেডিংয়ের যন্ত্রণা। এ অবস্থায় বৃষ্টি কিছুটা হলেও স্বস্তি এনেছে।

এর আগে বুধবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল রাজশাহীতে। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বুধবার সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম ও রংপুর বিভাগে কিছুটা বৃষ্টি ছিল। এ সময়ে সবচেয়ে বেশি ৭৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে চট্টগ্রামে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাস তুলে ধরে আবহাওয়াবিদ খো. হাফিজুর রহমান জানান, চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের অনেক জায়গায়, ঢাকা ও খুলনা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসঙ্গে চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে।

তিনি বলেন, এ সময়ে সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা ১ থেকে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। রাজশাহী, পাবনা, নওগাঁ, দিনাজপুর, যশোর ও চুয়াডাঙ্গা জেলার ওপর দিয়ে তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। সিলেট জেলাসহ ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগ এবং রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের অবশিষ্টাংশের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা কিছু কিছু জায়গা হতে প্রশমিত হতে পারে। আগামী তিনদিনে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু চট্টগ্রাম বিভাগ পর্যন্ত অগ্রসর হতে পারে। বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে বলেও জানান হাফিজুর রহমান।