• শনিবার ২৫ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

মাকে মারধরের পর বীর নিবাস থেকে বের করে দিলেন ছেলে

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১০ জুন ২০২৩  

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা না দেওয়ায় মাকে মারধরের পর বীর নিবাস থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ছেলের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় বৃদ্ধা মা মরিয়ম বেগম (৬৫) ছেলে মহিউদ্দিন ও পুত্রবধূ রিপনা আক্তারসহ তিনজনের নামে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। শুক্রবার (৯ জুন) সন্ধ্যায় থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন তিনি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাটুরিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইমাম-আল মেহেদী।

থানার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ধানকোড়া ইউনিয়নের গোয়ারিয়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা উসমান গণি মারা যাওয়ার পর বীর নিবাসে মেয়ে জহুরা আক্তারকে সঙ্গে নিয়ে বসবাস করেন মরিয়ম বেগম। বীর নিবাস দখল ও বাবার ভাতার টাকার ভাগ নিতে বড় ছেলে মহিউদ্দিন অনেকদিন ধরেই তাকে চাপ দিয়ে আসছিল। এর আগেও মাকে মারধর করলে গ্রাম্য মাতব্বররা বিষয়টি মীমাংসা করেন। শুক্রবার আবারও মায়ের ওপর চড়াও হন ছেলে রিকশাচালক মহিউদ্দিন। মাকে মারধরের এক পর্যায়ে বীর নিবাস থেকে বের করে দেন তিনি। এ সময় মেয়ে জহুরা আক্তার এগিয়ে এলে তাকেও মারধর করা হয়।

ভুক্তভোগী মরিয়ম বেগম জানান, স্বামী মারা যাওয়ার আগে থেকেই বড় ছেলে মহিউদ্দিন তার স্ত্রীকে নিয়ে অন্যত্র ভাড়া থাকতেন। মা বাবার কোনো খোঁজ নিতেন না। এখন তিনি ময়ের কাছে বাবার মুক্তিযোদ্ধার ভাতার টাকা চান। দিতে রাজি না হওয়ায় মাকে কিল-ঘুসি, লাথি মারেন মহিউদ্দিন।

সাটুরিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইমাম আল মেহেদী বলেন, ছেলে মহিউদ্দিন, তার স্ত্রী রিপনা আক্তার ও আতাউর রহমান নামে তিনজনের বিরুদ্ধে মরিয়ম বেগম থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ওই বৃদ্ধাকে বীর নিবাসে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।