• শনিবার ২৫ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

সাভার ও গাজীপুরে দুটি ওয়াইজ-২০২৪ অনুষ্ঠিত

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ৩০ এপ্রিল ২০২৪  

আইডিই বাংলাদেশের অপরাজিতা প্রকল্প উইমেন এন্টারপ্রিনিউয়ারস নেটওয়ার্ক ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (ওয়েন্ড) এর সাথে অংশীদারিত্বে, দুইটি উইমেন ইনিশিয়েটিভ ফর সাসটেইনেবল এন্টারপ্রিনিউয়ারশিপ (ওয়াইজ-২০২৪) মেলা এবং কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত সোমবার (২২ এপ্রিল) সাভারে ও সোমবার (২৯ এপ্রিল) পিটিআই অডিটোরিয়াম, গাজীপুরে আলাদাভাবে অনুষ্ঠান দুটি সফলভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। চারশো’র বেশি আইডিই প্রশিক্ষিত কর্মচ্যুত পোশাক-শ্রমিক এ দুটি অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। সেখানে তারা বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী সংস্থা, কাঁচামাল তথা অন্যান্য সামগ্রী সরবরাহকারী এবং বেশ কিছু তৈরি পণ্য বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক স্থাপনের অনন্য সুযোগ পেয়েছিলেন। সেবা দানকারী এবং ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানগুলো ২০-৩০টি সুসজ্জিত স্টলে তাদের পণ্য ও সেবা উপস্থাপন করেন।

সাভারে অনুষ্ঠিত ওয়াইজ-২০২৪ মেলা এবং কর্মশালা অনুষ্ঠানে ওয়েন্ড সভাপতি ডাঃ নাদিয়া বিনতে আমিন (সংসদ সদস্য) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবং উদ্বোধনী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন। এছাড়াও গাজীপুরে উদ্বোধনী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন ডাঃ নাদিয়া বিনতে আমিন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফয়সাল হক। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে- মহিলা বিষয়ক অধিদফতর, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর, প্রাণিসম্পদ অধিদফতর, সমাজসেবা অধিদফতর এবং বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ডসহ বিভিন্ন সরকারী সংস্থা, বেশকিছু বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, সেইসাথে সোনালী ব্যাংক, ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘ (টিএমএসএস) এবং উদ্দীপনের মতো আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান, একমি ল্যাবরেটরি, মাশরুম অ্যাসোসিয়েশনসহ গুটিকয় কোম্পানি।

সেখানে আরো উপস্থিত ছিল- সেন্টার ফর কমিউনিকেশন অ্যাকশন বাংলাদেশ, সেভ দ্য চিলড্রেন, ফুলকি, কেয়ার এবং সার্কুলার অ্যাপারেল ইনোভেশন ফ্যাক্টরি (সি এ আই এফ)। ওয়াইজ-২০২৪ এমন একটি প্ল্যাটফর্ম, যা উদ্যোক্তা এবং উদ্যোক্তা হতে আগ্রহী এমন নারীদেরকে সহযোগী সংস্থা প্রদত্ত বিভিন্ন প্রশিক্ষণ এবং অন্যান্য সহায়তা পরিষেবাগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত অবহিত করে ৷ ইভেন্ট দুইটিতে ট্রেড লাইসেন্সিং, ডিজিটাল অ্যাক্সেস, ব্যাঙ্কিং, ঋণ প্রাপ্তি এবং ওয়েন্ড সদস্যপদে নিবন্ধন সংক্রান্ত কর্মশালাও অন্তর্ভুক্ত ছিল।

সাভার শাখার সোনালী ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, “ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের (এসএমই) জন্য ব্যাংকগুলোতে আলাদা ঋণ সুবিধা রয়েছে, যার মধ্যে নারী আবেদনকারীদের জন্য ন্যূনতম ৫ শতাংশ কোটা নির্ধারিত আছে। নারী উদ্যোক্তগণ ব্যাংকের বরাদ্দকৃত প্রণোদনা তহবিল থেকে চার শতাংশ ভর্তুকিযুক্ত সুদ হারে ঋণ নিতে পারতেন। তবে দুর্ভাগ্যবশত, সোনালী ব্যাংক, সাভার শাখায় কোনো নারী উদ্যোক্তা এই ঋণের জন্য আবেদন করেননি। নারী উদ্যোক্তগণের সচেতনতা বৃদ্ধি এবং তাদের চ্যালেঞ্জ দূর করতে কাজ করতে হবে।”

ওয়েন্ড'র সভাপতি ড. নাদিয়া বিনতে আমিন, এমপি বলেন- “আইডিই বাংলাদেশের মতো উন্নয়ন সংস্থাগুলোর সাথে সহযোগিতা ওয়েন্ডকে তৃণমূল পর্যায়ের নারী উদ্যোক্তাদের সাথে সংযোগ স্থাপন এবং সহায়তা প্রদান করার সুযোগ করে দিয়েছে। এই ধরনের আরও অংশীদারিত্ব ওয়েন্ডকে সমাজের বিভিন্ন স্তরের নারী উদ্যোক্তাদের মধ্যে একটি কল্যাণকর নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার অভীষ্ট লক্ষ্যের কাছাকাছি নিয়ে যাবে। উপরন্তু ওয়েন্ড মনে করে, সরকারী এবং বেসরকারী সংস্থাদের সাথে অংশীদারিত্ব মূলক কার্যক্রমই একটি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা, যা আইডিই অপরাজিতা কর্তৃক গৃহীত উদ্যোগগুলোকে টেকসই রাখবে।”

সাভার অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- এএন্ডএম'র চেয়ারম্যান ওলিজা মনোয়ার, আইডিই বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর সামীর কারকি ও আইডিই বাংলাদেশের হেড অব স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপ মো. আফজাল হোসেন ভূঁইয়া। এছাড়া অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা মহিলা ও শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা কাজী ইশরাত জামান, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মো. সাজেদুল ইসলাম, পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের (বিআরডিবি) উপজেলা কর্মকর্তা মো. সাজ্জাদ হোসেন, মাশরুম উন্নয়ন ইনস্টিটিউটের (এমডিআই) সহকারী কর্মকর্তা রাকিব হাসান, সোনালী ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. শাহাদাত হোসেনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যম প্রতিনিধিগণও উপস্থিত ছিলেন।

আইডিই বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর সামীর কারকি বলেন, “নারী উদ্যোক্তাদের পদক্ষেপ দীর্ঘমেয়াদে টেকসই হওয়ার মূল চাবিকাঠি হলো ওয়েন্ডের মতো স্থানীয় ব্যবসায়িক সংস্থার সাথে সম্পৃক্তি। তারাই নারী উদ্যোক্তাদের জন্য প্রয়োজনীয় সহায়তা দান করে, পুঁজি যোগান দেয় এবং গোষ্ঠীক সমর্থন প্রদান করে। সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে একত্রে কাজের মাধ্যমে, আমরা একটি শক্তিশালী কর্ম-কাঠামো তৈরি করতে পারি যা আগামীতে নারী উদ্যোক্তাদের উপকারে নিয়োজিত থাকবে।" লাল সবুজ, ডিজিটাল অ্যাক্সেসের এক উদ্যোক্তা বলেন, "আমার মনে হয়, অতীতে আমরা কাদায় নিমজ্জিত ছিলাম এবং আমাদেরকে সেখান থেকে বের করে আনা হয়েছে এবং আলোকিত হওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। আমরা অনুরোধ করছি, আমাদেরকে যেমন সাহায্য করা হয়েছে, তেমনি অন্যদের দিকেও আপনাদের হাত বাড়িয়ে দিন এবং তাদেরও আমাদের মতো জ্বলতে সহায়তা করুন।"