• বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৬ ১৪৩১

  • || ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আরসা নেতা গ্রেপ্তার

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৩ মে ২০২৪  

কক্সবাজারের উখিয়ার হাকিমপাড়া রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবিরে (ক্যাম্প-২০) অভিযান চালিয়ে পাঁচটি আগ্নেয়াস্ত্রসহ মো. আবদুল্লাহ (৩২) নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)। এপিবিএনের দাবি, আবদুল্লাহ মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্ঠী আরসার ক্যাম্প কমান্ডার (নেতা)। আজ বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে চারটার দিকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অস্ত্রসহ আরসার ক্যাম্প কমান্ডার গ্রেপ্তারের বিষয়ে আজ বেলা ১১টার দিকে ১৪-এপিবিএন কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে ব্যাটালিয়নের উপ-অধিনায়ক আরেফিন জুয়েল বলেন, আশ্রয়শিবিরের হাকিমপাড়ার একটি ঘর থেকে ঘুমন্ত অবস্থায় আবদুল্লাহকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁর কাছে দুটি বিদেশি পিস্তল ও দুটি গুলি পাওয়া গেছে। পরে তাঁর দেওয়া তথ্যে অভিযান চালিয়ে পাশের একটি পাহাড়ি এলাকা থেকে তিনটি দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র এবং বেশ কিছু গুলি ও গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে।

এপিবিএন কর্মকর্তা আরেফিন জুয়েল আরও বলেন, মিয়ানমার থেকে চোরাই পথে অস্ত্র–গোলাবারুদ নিয়ে এসে আশ্রয়শিবিরে আধিপত্য বিস্তার এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাতেন আবদুল্লাহ। তাঁর বিরুদ্ধে হত্যা, অস্ত্র, মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে ১০টি মামলা রয়েছে। রোহিঙ্গা নেতা ইলিয়াস হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সরাসরি জড়িত আবদুল্লাহ।

অভিযানে নেতৃত্বদানকারী উখিয়া আশ্রয়শিবিরের ইরানি পাহাড় পুলিশ ক্যাম্পের কমান্ডার অংশু কুমার দেব জানান, আবদুল্লাহকে আজ দুপুরে উখিয়া থানায় হস্তান্তর করে অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়েছে। উখিয়ার কুতুপালং আশ্রয়শিবিরের (ক্যাম্প-৩) এক রোহিঙ্গা নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আবদুল্লাহ ক্যাম্প-৩–এর বাসিন্দা। তবে তিনি নিজ বাড়িতে অবস্থান না করে পাশের বালুখালী আশ্রয়শিবিরে (ক্যাম্প-৮) অবস্থান করে আসছেন।

আরসার ক্যাম্প কমান্ডার হিসেবে সদস্যদের মধ্যে অস্ত্র ও টাকা বিতরণ করেন তিনি। মাঝেমধ্যে নাফ নদী অতিক্রম করে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গিয়ে ইয়াবাসহ অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আসেন। আশ্রয়শিবিরে থাকা একাধিক সশস্ত্র গোষ্ঠীর সদস্যদের কাছে আবদুল্লাহ অস্ত্র-গোলাবারুদ বিক্রি করেন।