• বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৬ ১৪৩১

  • || ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

সুষ্ঠু পরিকল্পনা চান জাবি শিক্ষার্থীরা

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২৪  

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) জীববৈচিত্র্য রক্ষার স্বার্থে যত্রতত্র ভবন নির্মাণ বন্ধ করে পরিকল্পিত ভবন নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন করে শিক্ষার্থীরা। বুধবার (২৯ মে) দুপুর ১টায় শহিদ মিনার সংলগ্ন সড়কে মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে।

নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী সামিয়া সোহাগি সঞ্চালনায় মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বক্তব্য দেন। এসময় বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী আহসান লাবীব বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন গাছ কাঁটার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এজন্য রাতের আধারে অসংখ্য গাছ কেটে ভবন তৈরির পাঁয়তারা করছে। চারুকলা ভবনের বর্ধিত অংশে বহুতল ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়েছে। এর মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসা অতিথি পাখির ফ্লাইং জোন নষ্ট করা হবে।’

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী তৌহিদ মোহাম্মদ সিয়াম বলেন, ‘জীববৈচিত্র্যকে ধ্বংস করে ভবন নির্মাণে আমরা বাঁধা দিলে প্রশাসন বলে টাকা ফেরত চলে যাবে। এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাকি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, তা আমার বোধগম্য নয়। ভারতীয় হাইকমিশনের টাকা পেয়ে অতিথির ফ্লাইং জোনে বহুতল ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা করছে। এভাবে চললে অন্যান্য দেশও বিভিন্ন বিভাগকে টাকা দিলে তারা স্ব স্ব ভবন নির্মাণ করতে চাইবে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববৈচিত্র্য পুরোপুরি ধ্বংসের মুখে পড়বে।’

জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক বলন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের যত্রতত্র ভবন নির্মাণের ফলে একসময় এ ক্যাম্পাস ইট-বালুর জঞ্জালে পরিণত হবে। প্রশাসন প্রাণ-প্রকৃতিকে ধ্বংস করে ভবন করতে চায়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অপরিকল্পিত ভবন নির্মাণের ফলাফল আজকে আমাদের পিছনে থাকা কলা ও মানবিকী অনুষদের এই ভবন। এই ভবনটি এখনো পূর্ণাঙ্গ হয়নি। অথচ এই অনুষদের একটি সম্প্রসারিত ভবন নির্মাণের প্রাথমিক সব কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় একটি জলাশয় ভরাট করে গাণিতিক ও পদার্থ বিষয়ক অনুষদের সম্প্রসারিত ভবন, গাছপালা সমৃদ্ধ জায়গায় জীববিজ্ঞান অনুষদের সম্প্রসারিত ভবন এবং নতুন রেজিস্ট্রার ভবনের পিছনে কলা ও মানবিকী অনুষদের সম্প্রসারিত ভবন নির্মাণের প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু করেছে প্রশাসন। এ লক্ষ্যে জায়গাগুলোর দুটোতে টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে দেয়া হয়েছে। এছাড়া চারুকলা বিভাগ অনুষদ ভবন নির্মাণের জন্য একটি লেকের পাড়ের জায়গায় কার্যক্রম শুরুর চেষ্টা করছে। যেখানে ভবন হলে ক্ষতির সম্মুখীন হবে পরিযায়ী পাখির বিচরণ।