• বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৬ ১৪৩১

  • || ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

ট্রফি হাতে লিগ শিরোপা উদযাপন বসুন্ধরা কিংসের

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১৮ মে ২০২৪  

গত সপ্তাহে মোহামেডানকে হারিয়েই টানা পঞ্চম লিগ শিরোপা নিশ্চিত করেছে বসুন্ধরা কিংস। আজ ঘরের মাঠে পুলিশ এফসির বিপক্ষে ম্যাচ শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে সেই ট্রফিই উঠলো তাদের হাতে। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসান প্রধান অতিথি থেকে এদিন চ্যাম্পিয়ন ট্রফি তুলে দিয়েছেন কিংসের খেলোয়াড়দের। জয় দিয়ে লিগ ট্রফিটা বরণ করতে পারলে সোনায় সোহাগা হতো।

সেটি না হলেও কিংস অ্যারেনায় ২-২ গোলের উপভোগ্য ম্যাচ উপহার দিয়েছে দুই দল। যদিও আগের ম্যাচেই শিরোপা নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় এবং সামনে ফেডারেশন কাপ ফাইনাল থাকাল এ ম্যাচে বেঞ্চের খেলোয়াড়দের পরীক্ষা-নিরীক্ষার পথ বেছে নিয়েছিলেন কিংস কোচ অস্কার ব্রুজোন। সবশেষ মোহামেডানের বিপক্ষে লিগ ম্যাচ থেকে এদিন আট পরিবর্তন আসে কিংসের একাদশে। দারুণ ছন্দে থাকা রাকিব হোসেন ছিলেন বেঞ্চে, আর মিগেল ফিগেইরা ছিলেন না স্কোয়াডেই। আক্রমণে রবসন রোবিনহো ও দরিয়েলতন গোমেজের সঙ্গে ছিলেন এমফন উদো। নিয়মিত খেলে আসা ববুরবেক ও তপু বর্মণের জায়গা নেন আসরোর গফুরভ ও বিশ্বনাথ ঘোষ। মেহেদি হাসানের পরিবর্তে গোলপোস্টের নিচে ছিলেন আনিসুর রহমান। ম্যাচে অবশ্য প্রথম ভালো সুযোগ পেয়েছিল পুলিশ এফসিই।

দশম মিনিটে কিংসের বক্সের সামনে ফাঁকায় বল পেয়েও শট নিতে দেরি করে ফেলেন ইংল্যান্ড প্রবাসি মাহাদি ইউসুফ খান। ততক্ষণে ছুটে গিয়ে বল ক্লিয়ার করেন ইয়াসিন আরাফাত। সময় বাড়ার সঙ্গে কিংসও নিজেদের গুছিয়ে নিতে থাকে। পুলিশের রক্ষণে আনাগোনা বাড়ে রোবিনহোদের। কিন্তু কাঙ্খিত লক্ষ্যের দেখা মিলছিল না। অবশেষে বিরতিতে যাওয়ার আগে গোলখরা কাটায় চ্যাম্পিয়নরা। দরিয়েলতন গোমেজের ক্রসে পুলিশের বক্সে দারুণ কার্যকারিতা দেখিয়েছেন এমফন উদো। এই নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড দৌড়ে গিয়ে হেডে বল পাঠান জালে। 

বিরতির ঠিক পরেই ম্যাচে ফেরার সেরা সুযোগ নষ্ট করেছেন পুলিশের এমএস বাবলু। এদোয়ার্দ মরিওর শট আনিসুর ঝাঁপিয়ে ফেরালে সেই বল ফাঁকায় পেয়ে যান বাবলু কিন্তু তিনি বল মারেন পোস্টের উপর দিয়ে। দুই মিনিট পর পুলিশ ঠিকই সমতায় ফেরে। বক্সের বাইরে থেকে মাহাদির মাপা শট জড়িয়ে যায় জালে। এরপরই খেলোয়াড় বদল আনেন অস্কার ব্রুজোন। রফিকুল ইসলামকে তুলে রাকিবকে নামিয়ে আক্রমণে শক্তি বাড়ায় স্বাগতিকরা। তবে স্বাগতিক দর্শকদের হতাশ করে ৬৯ মিনিটে পুলিশকে এগিয়ে নেন মরিও। কাজেম শাহর বাড়ানো পাস পেয়ে বক্সে ঢুকে কোনাকণাকুণি শটে আনিসুর রহমানকে পরাস্ত করেন ভেনিজুয়েলার এই ফরোয়ার্ড।

অস্কার ব্রুজোনের এই দল যে সহজে হাল ছাড়ে না তার প্রমাণ মেলে স্রেফ দুই মিনিটের ব্যবধানে। রোবিনহো ও দরিয়েলতন রসায়নে দ্রুতই সমতা ফেরায় কিংস। রোবিনহোর থ্রু পাস ধরে বক্সে ঢুকে নিখুঁত ফিনিশিং করেন দরিয়েলতন। একটু পরেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ নষ্ট করেন ইয়াসিন আরাফাত। রোবিনহো কর্নারে দুরের পোস্টে ফাঁকায় পেয়েও বল পোস্টের অনেক উপর দিয়ে মারেন এই লেফট ব্যাক। শেষ দিকে পুলিশের রক্ষণে চাপ বাড়ালেও কিংস আর ম্যাচ জেতার গোল পায়নি।