• মঙ্গলবার   ২৪ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৯ ১৪২৯

  • || ২২ শাওয়াল ১৪৪৩

মাঘের শীতে জন জীবন বিপর্যস্ত

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২২ জানুয়ারি ২০২২  

মাঘের কনকনে শীত, হিমেল হাওয়া ও ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়েছে গোটা ধামরাই সহ তার আশ-পাশের জনপদ। গত কয়েক দিনের কন কনে শীতে জন জীবনকে থমকে দিয়েছে। গত কয়েক দিন দরে দিনে সুর্যের দেখা মিলে অল্প সময়ের জন্য।

আজ দুপুরে কিছু সময়ের জন্য সূর্য উঁকি মেরেছিল। তাপমাত্রা গত এক সপ্তাহ ধরে যা ছিল আজ কিছুটা কম হলেও ঘন কুয়াশা ভবন, বৃক্ষলতা, জনপদ অদৃশ্য করে রেখেছে। দুপুর গড়িয়ে পড়ার সাথে সাথেই শুরু হচ্ছে কুয়াশা পতন। 

পথে ঘাটে যত্রতত্র আগুন জ্বালিয়ে সাধারণ মানুষ শীত নিবারণে চেষ্টা করছেন। চায়ের দোকনে ভিড় গরম চা পান করে উষ্ণতা লাভের চেষ্টা করছে মানুষ। এবারের ঠান্ডা স্মরনকালের মধ্যে মনে রাখার মতো।

ধামরাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার হোসাইন মোহাম্মদ হাই জকী মোবাইল ফোনে বলেন উপজেলার ১৬ ইউনিয়নে চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে সরকারি শীতবস্ত্র ও কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও বেসরকারিভাবে বিভিন্ন সয়গঠনের পক্ষ থেকে কম্বল বিতরণ করেছে।

ঠান্ডায় ঘরের কোনো বসে থাকছে শিশুরা।

ধামরাই আবুল বাশার কৃষি কলেজের ৫ম সেমিষ্টারের ছাত্রী রেখা রানী সরকার।তিনি বলেন প্রকৃতির সাথে কেউ কি পারে? কুয়াশার কারণে যানবাহনে যেতে ও চলাচলে ভয়তো হয়ই। তার ৫ম সেমিষ্টারের বোর্ড ফাইনাল পরীক্ষা আজ। শিক্ষার্জনের জন্য এই বাধা অতিক্রম করতেই হবে। তাই ঠান্ডা ও কুয়াশায় কি হবে বলেন। তিনি বলেন আমাদের চেয়ে অনেক মানুষ শীত কষ্টে আছে তাদের প্রতি উচ্চবিত্তদের ও সরকারি সাহায্য প্রয়োজন মনে করেন রেখা।

ফুটপাতে পুরান কাপড়ের বেচা বিক্রি বেশী হচ্ছে। দাম কম থাকায় ফুটপাতে ক্রেতাদের ভিড় বেশি। কাঠ মিস্ত্রিরির কাজ করেন অর্মৃত সরকার বলেন, কুয়াশা ও শীতে বাইরে কাজ করা কষ্ট । কাজ না করলে খাবার পাবো কই। তাই ভোরেই বের হয়ে কাজে যাচ্ছি।

কৃষক মান্নান বলেন, আমি এখানো কাজ করতে পারি ,অনেকে আছে এই শীতে ঘর থেকে বের হতে পারে না । তাদের সাহায করা দরকার বলেন। 

ট্রাকের বডি নির্মাণকারী মিস্ত্রি অমৃত সরকার বলেন কুয়াশা ও ঠান্ডার কথা ভেবে জীবন চলে না। পরিবার পরিজন নিয়ে জীবন যাপন করতে অর্থের প্রয়োজন। ঠান্ডা বা কুয়াশা উপেক্ষা করেই আমাদের কাজ করেই যেতে হবে। 

এর পরও কাজ থেমে নেই.ঘরের বাইরে বেড়িয়ে পড়েছে মানুষ রোজগারের জন্য। সড়ক মহাসড়কের সকল যানবাহন হেড লাইট জ্বালিয়ে ধীর গতিতে চলাচল করছে, দুর্ঘটনা এড়াতে বাজাচ্ছে হর্ন জোরে জোরে। ধামরাইয়ের ঐতিহ্যবাহী বানরকুলসহ পশু-পাখিদের জীবনও থমকে গেছে কনকনে শীতে।