• রোববার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২১ ১৪২৮

  • || ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

লক্ষীপুর থেকে চুরি যাওয়া স্বর্ণালংকার মানিকগঞ্জ থেকে উদ্ধার, আটক

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৫ নভেম্বর ২০২১  

লক্ষীপুরের রামগতি থানা সদরের বাজার থেকে চুরি হয়ে যাওয়া স্বর্ণালংকার মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার শাকরাইল থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। শিবালয় থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার দিবাগত রাতে শাকরাইল গ্রাম থেকে চুরি করে নিয়ে  আসা ৯ ভরি স্বর্ণ ও ৪ ভরি রুপার গহনাসহ পলাশ হালদার (৩৫) কে আটক করে।

জানা গেছে, লক্ষীপুর জেলার রামগতি থানা সদর বাজারে কানন স্বর্ণ শিল্পালয়ে কারিগর হিসেবে কাজ করতেন পলাশ। গত ২৭ অক্টোবর দুপুরে দোকান মালিক হৃদয় সাহা (দুর্লভ) অসুস্থতার কারণে দোকানে আসতে পারেননি। 

এ সুযোগে কর্মচারী পলাশ তার দোকান থেকে  আনুমানিক ১৪-১৫ লাখ টাকা মূল্যের মূল্যবান২১-২২ ভরি স্বর্ণালংকার নিয়ে পালিয়ে বাড়িতে এসে আত্মগোপনে থাকে। এ ব্যাপারে হৃদয় সাহা রামগতি থানায় একটি মামলা করলে রামগতি থানা পুলিশ পলাশ হালদারের তথ্য যাচাইয়ের জন্য শিবালয়ের থানা পুলিশের সহয়তা নেন। তথ্য সঠিক প্রমানিত হওয়ায় রামগতি থানা পুলিশের অনুরোধে শিবালয় থানা পুলিশ গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে স্বর্ণালংকারসহ পলাশকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। উদ্ধারকৃত স্বর্ণালংকারসহ আটককৃত আসামী পলাশকে রামগতি থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করেন শিবালয় থানা পুলিশ৷

শিবালয় থানা ওসি মোঃ ফিরোজ কবির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, দোকান মালিক হৃদয় সাহা ও কর্মচারী পলাশ হালদার দুইজনেই পূর্ব পরিচিত। সে সুবাদে হৃদয় সাহা তার নিজ মালিকানাধীন কানন স্বর্ণ শিল্পালয়ে পলাশ কারিগর হিসেবে কাজ দেন। সুযোগ বুঝে পলাশ হালদার ওই দোকান মূল্যবান স্বর্ণালংকার নিয়ে পালিয়ে তার নিজ এলাকা মানিকগঞ্জ জেলায় শিবালয় উপজেলার শাকরাইল গ্রাম আত্মগোপন করে।

এ ব্যাপারে হৃদয় সাহা রামগতি থানায় মামলা করলে সেই মামলার সুত্র ধরে গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে পলাশকে আটক করা হয় । এরপর উদ্ধারকৃত স্বর্ণালংকারসহ আসামী পলাশকে রামগতি থানা পুলিশের নিকট বুধবার হস্তান্তর করা হয়েছে।