• সোমবার   ১৫ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৯

  • || ১৭ মুহররম ১৪৪৪

ভোগান্তির অপর নাম গাজীপুর চৌরাস্তা-ভোগড়া বাইপাস

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০১৯  

দিনভর যানজট লেগেই থাকে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের (গাসিক) চান্দনা চৌরাস্তা ও ভোগড়া বাইপাস এলাকায়। পৃথক দুটি স্থানে প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কজুড়ে এ যানজট লেগে থাকে সব সময়। আর এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েন এই দুই সড়ক দিয়ে চলাচলকারী মানুষ।

ভোগান্তির শিকার মানুষেরা বলছেন, যানজটের কারণে চান্দনা চৌরাস্তা ও ভোগড়া বাইপাস সড়কের মাত্র ২ মিনিটের পথ যেতে সময় লাগে প্রায় আধা ঘণ্টা। কখনও কখনও ঘণ্টাও ছাড়িয়ে যায়। এই দুই সড়ক যেনো মানুষের কাছে ভোগান্তির অপর নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, সিটি করপোরেশনের চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়ক দুটিতে প্রায় সব সময় এক কিলোমিটার যানজট লেগে থাকে। এ দিকে ভোগড়া বাইপাস এলাকায়ও ঠিক তাই। এ দুটি স্থানে সবসময় যানজট লেগে থাকে। ফলে প্রতিদিন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।

ওই সড়কে চলাচলকারী বাসের চালক হুমায়ূন কবির বলেন, ‘কালিয়াকৈরের চন্দ্রা থেকে ঢাকা যেতে যানজটে আটক পড়ে থাকতে হয় ভোগড়া বাইপাস এলাকায়। এখানে ২ থেকে ৩ মিনিটের পথ অতিক্রম করতে প্রায় আধা ঘণ্টা সময় লাগে। কোনো কোনো সময় এক ঘণ্টাও লেগে যায়। ফলে যাত্রীদের নিয়ে ভোগান্তি পোহাতে হয়। অনেক যাত্রী পায়ে হেঁটে কিছু দূর গিয়ে আবার অন্য গাড়িতে ওঠে। যানজটের কারণে সময় মতো গন্তব্যস্থলে যাওয়া যায় না।

ঢাকাগামী এক বাসের যাত্রী মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ভোগড়া বাইপাসে এলে প্রায় সময় যানজটে আটকা পড়ে থাকতে হয়। এই বিরক্তিকর যানজটে সময় অপচয় হয়। সময় মতো কোথাও যাওয়া যায় না।

এ যানজট নিরসনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে ট্রাফিক পুলিশসহ প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে গাজীপুর মহানগর পুলিশের (জিএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) আব্দুল আল মাহমুদ বলেন, বিআরটিএ কাজ চলমান থাকায় কিছুটা যানজট হচ্ছে। এছাড়া চান্দনা চৌরাস্তা ও ভোগড়া বাইপাস এলাকায় সড়কে কোনো ফুটওভার ব্রিজ না থাকায় মানুষ সড়কের ওপর দিয়ে হেঁটে যায়। চলাচল করে রিকশা ও ভ্যান। এ কারণে ধীর গতিতে যানবাহন চলাচল করে। সৃষ্টি হয় যানজটের। তবে এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া হবে আশা করছি।