• বৃহস্পতিবার   ১১ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৭ ১৪২৯

  • || ১৪ মুহররম ১৪৪৪

ইভিএম যখন কারো দুঃস্বপ্ন

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০১৮  

ইভিএম যার পূর্ণরূপ ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন। এই মেশিনটির মাধ্যমে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ করা হয় এবং এই পদ্ধতিকে বলা হয় ই ভোটিং। ইভিএম হলো দেশ ডিজিটাল যুগে পদার্পণ করার আরো একটি উদাহরণ।

এক একটি মেশিনে প্রায় চার হাজার ভোট দেয়া যায়। সর্বোচ্চ ৬৪ জন প্রার্থীর তালিকা থাকে। বাটন চাপ দিয়ে অক্ষরজ্ঞানহীন ব্যক্তিও ভোট দিতে পারে। একটি ভোট দিতে আনুমানিক ১৪ সেকেন্ড সময় লাগে। এই পদ্ধতিতে কোনো ভাবেই জাল ভোট বা দুই বার ভোট দেয়ার কোনো সুযোগ থাকছে না। ফলে এর মধ্যে সুষ্ঠু ভোট গ্রহণ সম্ভব।

আসন্ন নির্বাচনে দেশের ছয়টি আসনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। ইভিএম ব্যবহার করা আসনগুলো হলো, ঢাকা-৬, ১৩, চট্টগ্রাম-৯, রংপুর-৩, খুলনা-২ ও সাতক্ষীরা-২। এই ৬টি আসনের সবগুলো ভোট কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। ফলে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ভোট গ্রহণ সম্ভব হবে। যেখানে কারচুপির কোনো সুযোগ থাকবে না। আর এতেই রাতের ঘুম হারাম হয়েছে কিছু শ্রেণীর মানুষের। কারণ, তাদের মূল হাতিয়ারই হচ্ছে দুর্নীতি, অবৈধ পদ্ধতি, অপরাধ, অর্থকেলেঙ্কারি। আশা করা যাচ্ছে এই বিশেষণের অন্তর্ভুক্ত কোন শ্রেণীর মানুষ বা কোন দল তা ইতোমধ্যে পাঠকরা বুঝতে পেরেছেন। দেশের দুর্নীতিতে স্বনামধন্য দল বিএনপির কথা এখানে বলা হচ্ছে।

জনগণের সঠিক মতামতে তাদের নির্বাচনে সিকি খানা জনসমর্থন পাওয়ার কথা নয়। এজন্য জাল ভোট, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে  নির্বাচনকে বানচাল করাই  তাদের উদ্দেশ্য ছিল। কিন্তু ইভিএম ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের সুযোগ অনেকটা হাতছাড়া হয়ে যাচ্ছে। শুধু বিএনপিরই নয় বিএনপির সাথে নতুন যুক্ত ঐক্যফ্রন্টের সদস্যদেরও একই অবস্থা। তাদের মূল সমস্যা ইভিএম। তাদের ভাষ্যমতে ইভিএম ব্যবহার পুরোপুরি ভিত্তিহীন

এটি একটি অগণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া। এ যেন ভূতের মুখে রাম নাম। আসলে এর পিছনে রয়েছে বিশাল কালো উদ্দেশ্য। ইভিএমকে প্রশ্নবিদ্ধ করে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করার টার্গেটে রয়েছে বিএনপি। আর যারা মনোনয়নপত্র ভুয়া নেতাকর্মীদের দিতে পারে তাদের জন্য এই ধরণের ছলচাতুরি খুবই মামুলি বিষয়।

ঐক্যফ্রন্ট, নাম শুনলেই মনে হয় ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ একটি দল। যা কিনা মিলিত হয়েছে বিএনপির সাথে। কিন্তু বাস্তব অন্তত নিষ্ঠুর। ঐক্যফ্রন্ট যুক্ত হওয়ার পর বিএনপির কোন্দল আরও বেশি বেড়ে গেছে। আসন ভাগাভাগি নিয়ে কোন্দল এখন চরম আকার  ধারণ করেছে। কিন্তু সব কিছু ছাপিয়ে ইভিএমই তাদের সাজানো স্বপ্ন নষ্ট করে দিয়েছে। কারণ ইভিএম ব্যবহার করার ফলে জনগণের মতামত সঠিক ভাবে প্রকাশ পাবে। আর মতামত সঠিক ভাবে প্রকাশ পেলেই বিএনপির লক্ষণীয় মাত্রায় ভরাডুবি হবে। ইভিএম বিএনপি ঐক্যফ্রন্টের সামনে অনেকটা দুঃস্বপ্নের মতো এসে হাজির হয়েছে।