• সোমবার   ১৫ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৯

  • || ১৭ মুহররম ১৪৪৪

অলৌকিক ঘটনা ছাড়া বিএনপির হৃদপিণ্ড বাঁচিয়ে রাখা অসম্ভব!

মানিকগঞ্জ বার্তা

প্রকাশিত: ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

নিউজ ডেস্ক: দলের অভ্যন্তরে সমন্বয়হীনতা, সিনিয়র নেতাদের ষড়যন্ত্র, বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে বের না করার উদ্যোগসহ বিভিন্ন কারণে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের সাথে ক্রমশ দূরত্ব বাড়ছে তারেক রহমানের। বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রের বরাতে তথ্যের সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

সিনিয়র নেতাদের ছন্নছাড়া অবস্থায় বিএনপি মৃতপ্রায়।  সূত্রের খবরে জানা গেছে, পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিএনপির অঙ্গ সংগঠন থেকে যে অনুদানের টাকা আসে সেই টাকার ভাগ নিয়েই বিএনপির অভ্যন্তরে মূল গণ্ডগোল সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়াও দলে মির্জা ফখরুলের একচ্ছত্র আধিপত্য, রাজপথের আন্দোলনের নামে উঠান বৈঠক করা, সভা-সেমিনারে আন্দোলন সীমাবদ্ধ রাখার জন্য রাজনৈতিক অঙ্গনে হাসি-ঠাট্টার পাত্রে পরিণত হয়েছে বিএনপি।  বিএনপির অবস্থা কৃষকহীন শস্য ক্ষেতের মতো হয়ে গিয়েছে।

এদিকে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপি অলৌকিক ভাবেই টিকে আছে। বর্তমান বিএনপি এতিম, অসহায় ও সহায়-সম্বলহীন। নেতারা প্রতিনিয়ত বিএনপিকে বিক্রি করছেন বেঁচে থাকার জন্য।  দলের নেতৃত্ব কার হাতে কেউ জানে না সঠিকভাবে। রিজভী নিজেকে মহাসচিব ভাবেন। মির্জা ফখরুল রিজভীকে সহ্য করতে পারেন না। যেন সতীনের সংসার করছে বিএনপি।

বিএনপির নয়াপল্টন সূত্রে জানা যায়, যুবদলে একাধিক কমিটি দেওয়ার নামে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়া, তৃণমূল বিএনপি থেকে তোলা চাঁদার টাকায় দুর্নীতি, তৃতীয় জোট তৈরি করার নামে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে লন্ডন থেকে ফোন করে মির্জা ফখরুল, মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আব্দুল আউয়াল মিন্টুসহ একাধিক সিনিয়র নেতাকে বকাঝকা ও গালিগালাজ করেছেন তারেক রহমান। তার অনুপস্থিতিতে দলকে ভেঙে-চুরে, বিক্রি করে দালালীর জন্য এসব নেতাদের ইচ্ছামতো তিরস্কার করেছেন তারেক রহমান।  চূড়ান্ত বোঝাপড়ার জন্য অভিযুক্ত নেতাদের ব্যাংককে ডেকেছেন তারেক।

উল্লেখ্য, মির্জা ফখরুলসহ একাধিক নেতা ব্যাংককে গেলেও চলতি দায়িত্ব কাউকে দিয়ে যাননি। অন্যের টাকায় মির্জা ফখরুলরা বিদেশ ভ্রমণ করেন, বিলাসিতা করেন, কেনাকাটাও করেন। তবে রিজভী আহমেদের মতো উপেক্ষিত নেতারা কার্যালয়ে বসে অপেক্ষার দিন গোনেন। রিজভীর মতে, শুধুমাত্র আল্লাহর দয়ায় বিএনপি চলে। আল্লাহ চালান বিএনপিকে। বিএনপি নিজে চলার পথ হারিয়ে ফেলেছে। বিএনপিকে দিশাহীন ও নেতৃত্বহীন করার জন্য তারেক রহমান ও মির্জা ফখরুল দায়ী।